মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
জামালগঞ্জে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্ট্যান্ডসহ তিনশত জাতীয় পতাকা বিতরণ জামালগঞ্জে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ষ্টীল আলমিরা, চেয়ার ও টেবিল বিতরণ সরকারি ১৫০ টন চাল আত্মসাতের মামলায় খাদ্য গুদামের কর্মকর্তা কারাগারে।  সন্ত্রাসীরা ছাত্রলীগ নেতার বাড়ি হামলা লুটপাট কালে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে মাথা থেঁতলে দেয়।    গফরগাঁওয়ে ভাড়া বাড়িতে চেয়ারম্যানের লাশ, বধ্যভূমির খালে নবজাতকের লাশ উদ্ধার। ২৫ মার্চ মানব সভ্যাতার ইতিহাসে এক কলঙ্কিত দিন.-একরামুল করিম সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে ছাত্রছাত্রীদের দেশ গঠনে ভূমিকা রাখতে হবে: ডা. শাহাদাত হোসেন ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে ইসি,ভোটগ্রহণ ৫ মে।  খাদ্যে ভেজাল মাদকের চেয়েও ভয়াবহ, তাই খাদ্যে ভেজালকারীর শাস্তি মৃত্যুদন্ড হওয়া উচিত ডলুরা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত




জনপ্রিয় কুদ্দুস বয়াতিকে বাঁচাতে মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চান তার পরিবার

জনপ্রিয় কুদ্দুস বয়াতিকে বাঁচাতে মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চান তার পরিবার




কেন্দুয়া (নেত্রকোণা) প্রতিনিধিঃ স্বনামধন্য পালা গায়ক ও জনপ্রিয় লোকশিল্পী আব্দুল কুদ্দুস বয়াতিকে বাঁচাতে মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কণ্যা শেখ হাসিনার আন্তরিক সহায়তা চান তার পরিবারের সদস্যরা। একই সঙ্গে কুদ্দুস বয়াতির মুখে হাসি ফিরিয়ে আনতে লাখো ভক্তরাও প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আবেদন জানাচ্ছেন। নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার কান্দিউড়া ইউনিয়নের রাজীবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণকারী পালা গায়ক আব্দুল কুদ্দুস বয়াতি নন্দিত কথা সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদের হাত ধরেই জাতীয় শিল্পির মর্যাদা পান। তিনি তার জীবনের যৌবন থেকে পালা গান পরিবেশন করে দেশ বিদেশে অনেক সুখ্যাতি অর্জন করেন। এক বাক্যে সারা দেশে তার নামটি কুদ্দুস বয়াতি হিসেবে পরিচিত। জনপ্রিয় এই শিল্পী নেত্রকোনার কেন্দুয়া তথা বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতিকে তার পালা গানের মাধ্যমে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরেছেন। তার জন্মস্থান কেন্দুয়াকে বসিয়েছেন অনেক সম্মানিত স্থানে। পালা গায়ক লোক শিল্পী আব্দুল কুদ্দুস বয়াতি চলতি মাসের ১৭ ফেব্রæয়ারি অসুস্থ হয়ে রাজধানীর বক্ষব্যাধী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। কুদ্দুস বয়াতির স্ত্রী পাপিয়া কুদ্দুস বিনা জানান, বক্ষব্যাধী হাসপাতালে ১২-১৩ ওয়ার্ডে রোম নং টি-১২ তে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন। রোববার সন্ধ্যার পর তার সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সমকালকে বলেন, কুদ্দুস বয়াতি মুখে কোন খাবার খেতে পারছেন না। চিকিৎসকরা বলছেন তার খাদ্যনালী শুকিয়ে গেছে। যে কারণে তিনি মুখে খাবার নিতে পারছেন না। তাকে দিল্লিতে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসার পরামর্শ দিয়েছেন বক্ষব্যাধী হাসপাতালের চিকিৎসকরা। পাপিয়া আক্তার বিনা জানান, এই চিকিৎসা করাতে ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা দরকার কিন্তু এত টাকা নেই কুদ্দুস বয়াতির পরিবারের সদস্যদের। পাপিয়া আক্তার বিনা বলেন, গত কয়েক মাসে আগে মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী কুদ্দুস বয়াতিকে পারিবারিক সঞ্চয়পত্র দিয়েছেন। পারিবারিক সঞ্চয়পত্র দেয়ার জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন এটি পরিবারের উপকারে এসেছে কিন্তু বর্তমানে কুদ্দুস বয়াতির চিকিৎসার কোন কাজে আসছেনা। তিনি সবুজ সুন্দর বাংলাদেশে গুণী এই শিল্পিকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রীর নিকট আকুল আবেদন জানান যেন প্রধানমন্ত্রী তার মমতা দিয়ে কুদ্দুস বয়াতির চিকিৎসা সহায়তায় এগিয়ে আসেন। এ অনুরোধ রেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাবা কুদ্দুস বয়াতিকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী সহ সমাজের বিত্তবানদের সহায়তা চায় তার কণ্যা। কুদ্দুস বয়াতির অসুস্থতার খবরে তার লাখো ভক্তরা উদ্বিগ্ন। তারাও দাবী করে বলেন, কুদ্দুস বয়াতির মতো গুণী শিল্পীকে একমাত্র মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কণ্যা শেখ হাসিনাই চিকিৎসা সহায়তা দিয়ে বাঁচাতে পারেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *













©২০১৩-২০১৯ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা
Desing & Developed BY DurjoyBangla