রবিবার, ২১ Jul ২০১৯, ১২:৪৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
মদনে নৌকা থেকে পড়ে গিয়ে সবজি বিক্রেতার মৃত্যু জামালগঞ্জে বজ্রপাতে নিহত দুই পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান সুনামগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে পুড়ানো হলো তিনটি ড্রেজার মেশিন জামালগঞ্জে জন্মনিবন্ধন জালিয়াতি ও অশ্লীল ভিডিও রাখার দায়ে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৈয়দপুরে অসামাজিক কার্যকলাপের দায়ে ৩ জনের বিনাশ্রম কারাদন্ড শহিদুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজ ২য় বার ঝিনাইদহ জেলার শ্রেষ্ঠ কলেজ নির্বাচিত নীলফামারীতে যুব মহিলা লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত রাজারহাটে অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ আটক- ২ নেত্রকোনার হাওরাঞ্চলে একটি মৎস্য গবেষনা ইনষ্টিটিউট গড়ে তোলা হবে- মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু সাতকানিয়া- লোহাগড়া আপামর জনগনের পাশ্বে সুখে দুঃখে আছি থাকব,ড. আবু রেজা নদবী




রাজারহাটে স্কুল শিক্ষক মনিবুলের লটকন চাষে সাফল্য

রাজারহাটে স্কুল শিক্ষক মনিবুলের লটকন চাষে সাফল্য




এ.এস.লিমন, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ 
শখ করে ৪-৫ বছর পূর্বে স্কুল শিক্ষক মনিবুল হক বসুনীয়া (৪৪) শিক্ষকতার পাশাপাশি লটকন চাষে ঝঁুকে পড়েন। প্রথমে ৬০টির মতো উন্নত জাতের লটকনের চারা ক্রয় করে তার সুপারি বাগানে লটকনের চাষ শুরু করে দেন। ৩-৪ বছর যেতেই গাছগুলোতে প্রচুর পরিমাণে লটকন আসতে শুরু করে। এতে করে তিনি উজ্জীবিত হয়ে পরবর্তীতে আরও শতাধিক লটকনের চারা রোপন করেন। এ বছর তার লাগানো ৫১টি গাছে প্রচুর পরিমাণে লটকন এসেছে। সরজমিনে রোববার বিকালে রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ ইউপির সুখদেব গ্রামের ছবির উদ্দিন বসুনীয়ার পুত্র প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক লটকন চাষী মনিবুল হক বসুনীয়ার বাগানে গিয়ে দেখা যায় প্রতিটি গাছে দেড় থেকে দুই ফুট গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত থোকায়-থোকায় লটকন ঝুঁলছে। এ সময় তিনি এ প্রতিনিধিকে বাগান করার শখ কিভাবে এলো তা জানাতে শুরু করেন। আনুমানিক ১০-১২ বছর পূর্বে উলিপুর উপজেলার দলদলিয়া ইউপির কদমতলা এলাকায় তিনি তার এক বন্ধুর বাড়িতে বেড়াতে যান। ফেরার সময় পথিমধ্যে একটি বাড়ির সুপারির বাগানে দেখতে পান লটকন গাছে থোকায় থোকায় লটকন ঝঁুলছে। এ থেকে তার মাথায় লটকন চাষের আগ্রহ আসে। এরপর বাড়িতে ফিরে তার সুপারি বাগানে লটকন চাষের জন্য প্রস্তুতি নেন। ৪-৫ বছর পূর্বে তিনি এক পরিচিত নার্সারীর মালিকের সঙ্গে পরামর্শ করে প্রথম দফায় ৬০টি লটকনের চারা রোপন করেন। এর মধ্যে ৯টি চারা মরে যায়। গত বছর থেকে বাগানে লটকন আসতে শুরু করে। এ বছর প্রচুর পরিমাণে লটকন এসেছে। তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই ৫০ হাজার টাকার লটকন বিক্রি করেছি। আশা করছি, কমপক্ষে আরও ৭০-৮০ হাজার টাকার লটকন বিক্রি করতে পারবো। স্কুল শিক্ষক মনিবুল হক বসুনীয়া ইতিমধ্যে তার পার্শ্ববর্তী বাড়িগুলোতে নিজেই শ্রমিক নিয়ে লটকনের চারা ক্রয় করে এনে লাগিয়ে দিয়ে তাদেরকে উৎসাহী করে তোলার কথা জানান। তার কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের এই গ্রামটিকে বাণিজ্যিকভাবে লটকন চাষে সকলকেই উদ্বুদ্ধ করছি। এলাকার বাইরেও যেন লটকনের ওই গ্রামকে চিনেন মানুষজন। ওইসব চারা রোপনের পর অনেকে তাকে টাকাও দিচ্ছেন। কেউ দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তিনি তাদেরকে বলছেন ২-৩ বছর পর গাছে লটকন এলে তা বিক্রি করে আমাকে টাকা দিয়েন। ৯ ভাই-বোনের মধ্যে স্কুল শিক্ষক লটকন চাষী মনিবুল হক বসুনীয়া ৫ম। তিনি সব সময় প্রাকৃতিক ফল-মুল খেতে বেশ নিজেকে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। শিক্ষক মনিবুলের এ কর্মকান্ড দেখে পার্শ্ববর্তীরাও মুগ্ধ।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *













©২০১৩-২০১৯ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা
Desing & Developed BY DurjoyBangla
error: Content is protected !!