বুধবার, ২৬ Jun ২০১৯, ১২:০১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে মহিলা ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্টিকে কুপিয়ে হত্যা সুনামগঞ্জে দুই উপজেলায় দুই লাশ উদ্ধার সুনামগঞ্জে সপ্তম শ্রেণির স্কুলছাত্রী অপহরণের ঘটনায় নারী আসামী গ্রেফতার রাজারহাটে স্কুল শিক্ষক মনিবুলের লটকন চাষে সাফল্য নীলফামারীতে নতুন জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরীর যোগদান জৈন্তাপুরের স্কুল ছাত্র শামীম বাঁচতে চায় ডিআইজি মিজানুর রহমানকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। মুক্তাগাছা টু ময়মনসিংহ রুটে বিআরটিসি বাস সার্ভিসের উদ্বোধন করলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী  পিসি রোড নিমতলায় ৭৫ কোটি টাকার জায়গা উদ্ধার করলো চসিক ভ্রাম্যমান আদালত আওয়ামীলীগ এই উপমহাদেশের প্রাচীন সুসংগঠিত রাজনৈতিক দল, কেউ ধ্বংস করতে পারবে না-শেখ হাসিনা। 




শেরপুরে সুপ্রিম কোর্টের আদেশ অমান্য করে বালু উত্তালন চলছে!! 

শেরপুরে সুপ্রিম কোর্টের আদেশ অমান্য করে বালু উত্তালন চলছে!! 




মোহাম্মদ দুদু মল্লিক ঝিনাইগাতী প্রতিনিধিঃ

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার পাহাড়ি নদী মহারশি থেকে ৮টি পয়েন্ট থেকে শক্তিশালী শ্যালো মেশিন বসিয়ে দিনরাত চলছে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব।

এছাড়াও উপজলার পাহাড়ি বিভিন্ন ঝুড়া, খাল ও নদী থেকে চলাচ্ছে বালু উত্তোলনের প্রতিযোগিতা। প্রতিদিন শত শত ট্রাক ভর্তি করে এ বালু দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করছে প্রভাবশালী সিন্ডকেট। এছাড়াও একই ঠিকাদার উপজেলার পাহাড়ি নদী তাওয়াকুচা সুমশ্বরী থেকেও সুপ্রিম কোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে অবৈধ ভাবে চালাচ্ছে বালু উত্তোলন।

এভাবে দিনের পর দিন অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত রাখা এবং সুপ্রিম কোর্টের নিষধাজ্ঞা অমান্য করলেও পরিবেশ অধিদপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তবে মাঝে মধ্যে প্রশাসনের তরফ থেকে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে বালু উত্তালনের যন্রপাতি জব্দ ও জরিমানা করলেও বালু উত্তোলন থেমে নেই।

স্থানীয় পরিবেশ সচেতন মহল অভিযাগ তুলছেন, মহারশি নদী থেকে এভাবে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনের কারণে বর্তমান নদীর তীরবর্তী এলাকার বসতি ও আবাদি জমি ভাঙ্গনের কবলে বিলীন হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। একইসাথে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের কারণে পরিবেশের উপর মারাত্মক প্রভাব ও গ্রামীণ সড়ক হুমকির মুখে পড়েছে।

এছাড়া উপজেলার সন্ধ্যাকুড়ায় মহারশি নদীর সেতুসহ বেশ কিছু ব্রীজ-কালভার্ট ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। জানা গেছে, জেলার ঝিনাইগাতি উপজেলার সীমান্তবর্তী পাহাড়ি সুমেশ্বরী নদীর তাওয়াকুচা বালু মহালটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে আসাদুজ্জামান স্বপন নামে এক ব্যক্তি ১৪২৫ বাংলা সনের ১ লা বৈশাখ হতে ৩০ শে চৈত্র পর্যন্ত (ইংরেজী ১৪ এপ্রিল ২০১৮ হইতে ১৩ এপ্রিল ২০১৯) পর্যন্ত ১ বছর মেয়াদী ইজারা গ্রহণ করেন। এরপর ইজারার মেয়াদ শেষ হলেও বালু ঠিকমতো উত্তোলন করতে পারেনি লোকসান হয়েছে এই মর্মে ইজারাদার চলতি বছরের ১০ মার্চ হাইকোর্টে এক রীট পিটিশন (রিট নং-২৬১৫/২০১৯) দায়ের করেন। আদালত ইজারাদার কে ৭ এপ্রিল আরো ৬ মাস বালু উত্তোলনের অনুমতি দেয়।এদিকে সরকারে পক্ষে হাইকোর্টের এই আদেশের বিরুদ্ধে ভুমি মন্ত্রানালয় সচিব স্বয়ং বাদী হয়ে চলতি বছরের সুপ্রীম কোর্ট আপীল করলে চেম্বার কোর্ট হাইকোর্টের ওই আদেশ (আপিল নং-১৩৫৬/২০১৯) স্থগিত করে বালু উত্তোলনের উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ২৪ জুন শুনানির আদেশ দেন।

তারপরও অদৃশ্য শক্তির জোড়ে বালু উত্তোলন বন্ধ করেনি ওই বালু ব্যবসায়ী স্বপন। এমতাস্থায় স্বপনের খুঁটির জোর নিয়ে উঠেছে নানা প্রশ্ন। তাই বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ খতিয়ে দেখে দ্রুত কঠোর ব্যবস্থানেয়ার দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে গত ২৩ মে সুপ্রিম কোর্টের আদেশ অমান্য করায় স্থানীয় জনগন আইজিপিসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। এ ব্যাপারে ইজারাদার আসাদুজ্জামান স্বপন বালু উত্তোলনের কথা স্বীকার করে বলেন, সুপ্রিম কোর্টের চেম্বার আদালতের শুনানি আগামী ২৪ জুন। এই তারিখের আগে আমি বালু তুলতে পারবনা।

এছাড়া চেম্বার আদালতের আদেশ স্থানীয় প্রশাসন বিচার-বিশ্লেষন করে দেখে আমাক বালু উত্তোলন করার অনুমতি দিয়েছে। এ ব্যাপারে ঝিনাইগাতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ জানায়, চেম্বার জজের আদেশ পাইনি। পেলে আমি ব্যাবস্থা নিব। এদিকে সুপ্রিম কোর্টের নিষধাজ্ঞা অমান্য করে বালু উত্তালনের বিষয়ে ঝিনাইগাতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি বিপ্লব বিশ্বাস বালু উত্তোলনের কথা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি জেলা প্রশাসনের এখতিয়ার হওয়ায় জেলা প্রশাসক কে অবহিত করা হয়েছে। তারা আমার সহযোগীতা চাইলে আমি সহযোগীতা করব।এ ব্যাপার সিভিল কোর্টের বিজ্ঞ আইনজীবী এ্যাডভোকেট খন্দকার রাকিবুল হাসান জানায়, মহামান্য হাইকোর্ট ডিভিশন আসাদুজ্জামান কর্তৃক করা ২৬১৫/১৯ নং রীট পিটিশনের প্রেক্ষিতে চলতি বছরের ১০মে আদেশটি ভূমি সচিব কর্তৃক আনীত ১৩৫৬/১৯ নং লিভ টু আপিলের মাধ্যমে স্থগিত হওয়ায় ইজারাদারের বালু উত্তোলণ আদালত অবমাননার সামিল।

এ ব্যপারে এডিসি (রাজস্ব) এবিএম এহসানুল মামুন ১১ জুন দুপুরে জানায়, আদালতের দুইটি আদেশের বিজ্ঞ জিপি’র মতামত চাওয়া হয়েছে। মতামতের ভিত্তিতে পরবর্তিত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *













পিকনিক বুকিং চলছে!

©২০১৩-২০১৯ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা
Desing & Developed BY DurjoyBangla
error: Content is protected !!