শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৩৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
জামালপুরের ডিসি ও এক নারীর ভিডিও নিয়ে তোলপাড় আগৈলঝাড়ায় ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বর্র্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহে ক্রীড়া পল্লীতে জুয়া খেলার আসরে র‌্যাবের অভিযানে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা।  কেন্দুয়ায় বিদ্যুৎ স্পর্শে একজনের মৃত্যু আগৈলঝাড়ায় জন্মাষ্টমী উপলক্ষে গৈলা বাজার কির্ত্তন ও পূজা উদযাপন কমিটির শোভাযাত্রা বকশীগঞ্জে মিঞাবাড়িতে হামলার প্রতিবাদে এলাকাবাসীর সংবাদ সম্মেলন ও মানব বন্ধন শ্রীপুর থানা থেকে চুরি যাওয়া “মোটরসাইকেল” এসআই’র গাড়ি চালকসহ তিনজন গ্রেপ্তার। কেন্দুয়ায় সায়মা শাহজাহান একাডেমীর ৪তলা ভবনের ভিত্তি প্রস্থর শুভ উদ্বোধন বারহাট্টায় শোক সভা বারহাট্টায় শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী পালিত




সাংবাদিক জয়ন্ত হামলায় গোপাল-রিংকুসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

সাংবাদিক জয়ন্ত হামলায় গোপাল-রিংকুসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা




সাংবাদিক ও হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত সেনের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় অবশেষে মূল দুই আসামি গোপাল রায় ও রিংকু রায়সহ ৬জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে।

শুক্রবার(১০মে) আহত সাংবাদিক জয়ন্ত সেন শাল্লা থানায় ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

উল্লেখ্য মামলার প্রধান আসামি গোপাল রায়কে ঘটনার দিন রাতেই গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সে বর্তমানে জেল হাজতে আছে।
মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে গোপাল রায়কে। অন্য আসামিরা হলো শাল্ল উপজেলার আনন্দপুর গ্রামের মৃত রবীন্দ্র রায়ের ছেলে রিংকু রায়, মৃত প্রাণকৃষ্ণ রায়ের ছেলে ইন্দ্রজিত রায়, রবীন্দ্র রায়ের ছেলে মিহির রায় ও রানা রায় এবং একই গ্রামের বাবলু রায়সহ অজ্ঞাতনামা আরো ২-৩জন।
৫ মে সন্ধ্যায় নিয়ামতপুর-জয়পুর নামক মধ্যবর্তী স্থানে সাংবাদিক জয়ন্ত সেনকে ধর্ষণ চেষ্টার সংবাদ প্রকাশের জেড়ে গোপাল রায় ও রিংকু রায়ের নেতৃত্বে তার উপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। তাকে দেশিয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে বেদম মারপিট করে মৃত ভেবে রাস্তায় ফেলে যায় গোপাল ও রিংকু গংরা। তার ডান পা, মাথা, পিঠ, গলাসহ শরিরের বিভিন্ন অঙ্গে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

আশঙ্কাজকভাবে সাংবাদিক জয়ন্ত সেনকে উদ্ধার করে এলাকাবাসী উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রথমে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে প্রেরণ করার কথা বললেও স্থানীয় সাংবাদিকদের অনুরোধে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে। এখনো তিনি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এদিকে সাংবাদিক জয়ন্ত সেনের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে পরদিন সুনামগঞ্জে কর্তব্যরত সাংবাদিকরা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেন। পরদিন শাল্লা ও বিশ্বম্ভরপুরেও মানববন্ধন করেন সাংবাদিক জনতা।

শুক্রবার(১০মে) সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বরকতুল্লাহ খানও শাল্লা থানার ওসি মো. আশারাফুল ইসলামকে আসামিদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন।

এব্যাপারে শাল্লা থানার ওসি মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, সাংবাদিক জয়ন্ত সেনের উপর হামলার ঘটনায় মামলা হয়েছে। আমরা সকল আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছি। আমাদের উর্ধতন কর্তৃপক্ষও আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য নির্দেশন দিয়েছেন।

এদিকে মামলার ঘটনায় যাদের সাক্ষী করা হয়েছে তাদের অনেককেই হুমকি ধমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মামলায় সাক্ষী হওয়ায় আসামি রিংকু রায়ের নেতৃত্বে তারা আসামিদের হুমকি দিচ্ছে। পাশাপাশি অসহায় সাংবাদিক জয়ন্তকে আইনী বিচার পেতে সহযোগিতা করায় ইউপি সদস্য সুব্রত সরকারের ফেইসবুক আইডি হ্যাক করেও এ বিষয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার করা হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

এব্যাপারে ইউপি সদস্য সুব্রত সরকার বলেন, আসামিরা সাক্ষীদেরও হুমকি দিচ্ছে। পাশাপাশি আমার ফেইসবুক আইডি হ্যাক করেও এ বিষয়ে মিথ্যা ও বিব্রতকর প্রচারণা চালাচ্ছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *













©২০১৩-২০১৯ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা
Desing & Developed BY DurjoyBangla
error: Content is protected !!