অবহেলায় পড়ে আছে চামরদানী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র | দুর্জয় বাংলা

শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০১:৩১ অপরাহ্ন




অবহেলায় পড়ে আছে চামরদানী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র

অবহেলায় পড়ে আছে চামরদানী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র




স্টাফ রিপোর্টারঃঃ

সুনামগঞ্জ জেলাধীন হাওরের রাজধানী হিসেবে খ্যাত মধ্যনগর থানার চামরদানী ইউনিয়নে “ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ” টি অবহেলায় পড়ে থাকায় বর্তমানে এলাকাবাসী চিকিৎসা সেবা থেকে সম্পুর্ণ বঞ্চিত রয়েছে।
পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটির চিকিৎসা সেবার ইতিহাসে জানা যায় ভাটি এলাকার বেশীর ভাগ প্রাথমিক চিকিৎসা থেকে শুরু করে ডায়রিয়া রোগী পর্যন্ত চিকিৎসায় নিরাময় হয়েছে।চিকিৎসক সবসময় অবস্থান করে এলাকার জনসাধারনকে চিকিৎসা সেবা করতেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। এলাকায় অভিযোগ উঠেছে দৌলতপুর স্বাস্থ্য পরিবার কল্যান কেন্দ্রের চিকিৎসা সম্পর্কে ভাবলে কান্না বেড়িয়ে আসে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিজস্ব উদ্যোগ চিকিৎসা সেবাকে বামে ফেলে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা মিসেস বদরুন্নেছা( কর্তব্যরত মহিলা কর্মী)সেবায় নিয়োজিত না থেকে- মন চাইলে তালা খুলেন মন না চাইলে তালা ঝুলিয়ে চলে যান।জায়গায় বসে মাসের শেষে খাতার হিসাব মেলানো ও বেতন ভাতা উত্তোলন করেন।তবে কোথায়? কখন? কাকে কী চিকিৎসা সেবা দেন তিনি নিজেই জানেন! এমনকী এলাকার সাধারণ জনতার চিকিৎসাও মিলেনা। এলাকায় গুরে জানা যায় সপ্তাহে একদিন মাঝে মধ্যে
স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি খোলা পাওয়া যায়, নতুবা চোখে দেখা যায় না তালাই ঝুলানো থাকে।মধ্যনগর থানা যুবলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ওবাইদুল ইসলাম খান রনি- তিনি জানান আমার থানা ধীন দৌলতপুর গ্রামে অবস্থিত চামরদানী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রটি ২২/০৬/১৯৯১ইংউদ্ভোদনের পর থেকে যেভাবে স্বাস্থ্য সেবা নিতে দেখা গেছে জনসাধারনকে এখন তেমনটি নেই,বর্তমানে চিকিৎসা সেবায় যথেষ্ট অনিয়ম ও দুর্নীতি রয়েছ। ভুক্তভোগী ও চামরদানী ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন জানান আমরা ছোট্ট বেলা থেকে চিকিৎসা নিয়েেছি এবং এই হাসপাতালের বেশ সুনামও ছিল কিন্তু বর্তমানে কেন যে সুনাম নষ্ট হয়েছে তা অবশ্য বোঝার কারো বাকী নেই। নিয়মিত চিকিৎসক না থাকায় এলাকার মানুষ চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, উর্ধতনের কাছে জোড় দাবী প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেয়ার। এছাড়াও গ্রামের অসংখ্য মানুষের অভিযোগ ডাক্তার মহিলা মন চাইলে এসে হাসপাতালের তালা খুলে কয়েকজনকে চিকিৎসা দেন আবার কিছুক্ষন পরে তালা লাগিয়ে চলে যান তাও আবার মন চাইলে সপ্তাহে ১ দিন।আমরা আমাদের এই হাসপাতালে অসংখ্য ডায়রিয়া রোগীর চিকিৎসা নিয়েছি এবং সুস্থ হয়েছে কিন্ত এখন আর তা হয়না,আমাদের ভাগ্যের নির্মম পরিহাস আমাদের নিজ গ্রামে হাসপাতাল রেখেও বাহিরে গিয়ে চিকিৎসা নিতে হয়। তাছাড়া —-
সুনামগঞ্জ জেলা মাতৃ কল্যাণ কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক র সাথে অভিযোগের বিষয়ে কথা বললে তিনি বলেন, কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রতিমাসের ৮ দিন ইউনিয়নের ৮ টি ওয়ার্ডে কাজ করার কথা রয়েছ,এর অন্যতা হলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেব।এছাড়াও উপজেলা মাতৃ কল্যান কর্মীর সাথে কথা বললে উত্তরে বলেন – আমি আসার পর থেকেই দেখলাম ইচ্ছা
স্বাধীন ভাবে ডিউটি করেন ।
কর্তব্যরত মিস বদরুন্নেছা কে অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিনিধির কাছে নিজদোষ স্বীকার করেন এবং জানান আমি অনিয়মিত ডিউটি করলেও যতটুকু পারি সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্য সেবা দিতে চেষ্টা করি।
মধ্যনগর এলাকাবাসীর প্রাণের দাবী এই হাসপাতালের ইতিহাসে যেরকম স্বাস্থ্য সেবা পেত,তেমনটি যেন স্বাস্থ্য সেবা ফিরে পায় এলাকাবাসী উর্ধ্বতনের কাছে জোড়দাবী।

নিউজটি সেয়ার করার জন্য অনুরোধ রইল!


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







আজকের নামাজের সময় সূচী

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৪:৫৪
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ১৭:১৬
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:৫৯
  • ১১:৪৭
  • ১৫:৩৭
  • ১৭:১৬
  • ১৮:৩২
  • ৬:১৩







১৩ তম আন্তর্জাতিক মহিলা এসএমই বানিজ্য মেলা

©২০১৩-২০১৯ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা
Desing & Developed BY DurjoyBangla