13.7 C
New York
শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১

আজ নেত্রকোনা মুক্ত দিবস

এ কে এম আব্দুল্লাহ্, নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি:

বিজ্ঞাপন

আজ ৯ ডিসেম্বর নেত্রকোনা পাক হানাদার মুক্ত দিবস। এ দিন নেত্রকোনা শহরকে পাক হানাদার মুক্ত করতে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধারা শহরকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে। মুক্তিযোদ্ধাদের চর্তুমুখী আক্রমনের মুখে হানাদার বাহিনী শহর ছেড়ে পালিয়ে যাবার পথে মোক্তারপাড়া ব্রীজ সংলগ্ন কৃষি ফার্মের কোনায় মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাক হানাদারদের মরণপন লড়াই হয়।

বিজ্ঞাপন

এ সন্মুখ সমরে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জব্বার (আবু খাঁ), বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার শহীদ হন। আহত হন কমান্ডার আবু সিদ্দিক আহমেদ। অবশেষে লড়াই ছেড়ে পাক হানাদার বাহিনী ময়মনসিংহের দিকে পালিয়ে যায়। নেত্রকোনা শহর হয় পাক হানাদার মুক্ত। মুক্তিযোদ্ধারা দলে দলে শহরে প্রবেশ করে স্বাধীন বাংলার সবুজ জমিনে লাল সূর্য খচিত পতাকা উত্তোলন করে নেত্রকোনা শহরকে মুক্ত ঘোষনা করে বিজয় উল্লাস করে। শত শত মুক্তিকামী জনতা রাস্তায় নেমে এসে মুক্তিযোদ্ধাদের অভিনন্দন জানান।



বিজ্ঞাপন

নেত্রকোনা মুক্ত দিবস উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ইউনিট কমান্ডের উদ্যোগে সকাল ১০টায় কালেক্টরেট প্রাঙ্গণে প্রজন্ম শপথ স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করেছে।

জঙ্গী নিমূর্লের দীপ্ত অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে ট্র্যাজেডি দিবস পালিত
নিহতদের স্মরণে ৫ মিনিট স্তব্ধ ছিল নেত্রকোনা

জেএমবি’র বোমা হামলায় নিহতদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা আর গণজাগরণের মাধ্যমে সন্ত্রাসী ও জঙ্গী কর্মকান্ড নির্মূলের দীপ্ত অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার পালিত হয়েছে নেত্রকোনায় বোমা হামলা ট্র্যাজেডি দিবস।
নেত্রকোনা ট্র্যাজেডি দিবস উদ্যাপন কমিটির উদ্যোগে সকাল ৯ টা ১৫মিনিটে জেলা শহরের অজহর রোডস্থ উদীচী কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাজ ধারনের মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচী শুরু হয়।

বিজ্ঞাপন



সকাল সাড়ে ৯টায় নিহতদের স্মরণে উদীচী কার্যালয়ের সামনে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ পুস্পমাল্য অর্পন করার পর বোমা হামলায় নিহতদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সকাল ১০টায় স্থানীয় শহীদ মিনারের সামনে সন্ত্রাস, মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। সকাল ১০.৪০মিনিটে থেকে ১০.৪৫ মিনিট পর্যন্ত যে যেখানে ছিল সেখানেই স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে ৫ মিনিট নীরবে দাড়িয়ে ‘স্তব্ধ নেত্রকোনা’ কর্মসূচী পালন করে। এ সময় সড়কে চলাচলরত সকল প্রকার যানবাহন ৫ মিনিটের জন্য থমকে দাঁড়ায়। পরে শহীদ পরিবারবর্গের সাথে সাক্ষাত অনুষ্ঠিত হয়।

আরো পড়ুন: টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় বাউফলের ৪ যুবক নিহত

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

বিজ্ঞাপন
x