13.7 C
New York
রবিবার, এপ্রিল ১১, ২০২১

আটপাড়ায় বয়ে চলছে খুশির বন্যা, মগড়া নদীর ড্রেজিং কাজের ব্যাপক সফলতা

মো: আসাদুজ্জামান খান সোহাগ, স্টাফ রিপোর্টারঃ

বিজ্ঞাপন

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি আমাদের বাংলাদেশ। এদেশে রয়েছে সমুদ্র ও অসংখ্য নদ-নদী, যা এদেশের সৌন্দর্যকে বহুগুণে বৃদ্ধি করেছে। নদীগুলো বাংলাদেশের ওপর দিয়ে অবিরামভাবে প্রবাহিত হয়ে দেশকে চির অপরূপ সৌন্দর্য দান করেছে।
আটপাড়ায় বয়ে চলছে খুশির বন্যা, মগড়া নদীর ড্রেজিং কাজের ব্যাপক সফলতা

বিজ্ঞাপন

মগড়া নদী বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নেত্রকোণা ও কিশোরগঞ্জ জেলার একটি নদী। নদীটির দৈর্ঘ্য ১১২ কিলোমিটার, গড় প্রস্থ ৭৭ মিটার এবং নদীটির প্রকৃতি সর্পিলাকার। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড বা “পাউবো” কর্তৃক মগড়া নদীর প্রদত্ত পরিচিতি নম্বর উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদী নং ৬৫। এই নদী নেত্রকোণাকে ঘিরে রেখেছে। নেত্রকোনার মদন উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে গেছে মগড়া নদী মগড়ার বহমান নদীপথ শহরটির সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ ।

এক সময় খরস্রোতা থাকলেও খননের পূর্বে পানি ছিল না বললেই চলে। উজান থেকে নেমে আসা ঢলে পলি-বালি জমে নদীটি এক সময় তার অস্তিত্ব হারাতে বসেছিল, বেদখল হচ্ছিল নদীর বিভিন্ন অংশ। ফলে নাব্যতা হারিয়ে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছিল নদীর মূল সত্তা। এমতাবস্থায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও নৌপরিবহন মন্ত্রীর সুনজর পড়ায় বিআইডব্লিউটি এর ক্যাপিটালড্রেজিং এ ২৪ টি নৌপথের অন্তর্ভুক্ত হয় দিলালপুর– ঘোরাদিঘা- চামড়াঘাট- নেত্রকোনা ও মগড়া/বাওলিয়া প্রকল্পটি।
আটপাড়ায় বয়ে চলছে খুশির বন্যা, মগড়া নদীর ড্রেজিং কাজের ব্যাপক সফলতা

বিজ্ঞাপন

২৪ টি নৌপথের ড্রেজিং কাজের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি রুট হলো দিলালপুর– ঘোরাদিঘা- চামড়াঘাট- নেত্রকোনা ও মগড়া/বাওলিয়া। দুইটি প্রকল্পের মধ্যে দিলালপুর– ঘোরাদিঘা- চামড়াঘাট- নেত্রকোনা প্রকল্পটি ইতিমধ্যে নির্ধারিত সময়ের পূর্বে শেষ হয়েছে এবং মগড়া/বাওলিয়া প্রকল্পটি চলমান রয়েছে। BIWTA এর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক জনাব সাইদুর রহমানের সার্বিক ও নিবিড় তত্ত্বাবধানে স্বনামধন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান Reve Dredging & Engineering Ltd. কর্তৃক দক্ষ জনবল ও সর্বাধুনিক প্রযুক্তিতে নির্মিত নেদারল্যান্ডেরকোম্পানিRoyal IHC20″ কাটার সাকশণ ড্রেজার দ্বারা উক্ত খনন কাজটি দ্রুত গতিতে সম্পন্ন হচ্ছে। নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি ড্রেজিংকৃত মাটি নদীর দুই পাশের স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসায়,মন্দির, নিচু জমি সম্পূর্ণ বিনামুল্যে জনসেবায় সরবারহ করা হচ্ছে।

নদীর দুই পাশের অনুর্বর জমিতেড্রেজিংকৃত মাটির সাথে পলি আসায় অনুর্বর জমি হয়ে উঠেছে উর্বর এবং স্থানীয় কৃষকদের দাবী তারা পূর্বের তুলনায় অধিক ফসল ফলাতে পারছেন। নদীর দুই পাশে খাস নিচু জমিতে ড্রেজিংকৃত মাটি দিয়ে উচু হওয়াতে স্থানীয় প্রশাসন সেখানে বাস্তবায়ন করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত আশ্রয়ন প্রকল্প। এই আশ্রয়ন প্রকল্পটি হয়ে উঠেছে হাজারো গৃহহীন ও ভূমিহীন মানুষের মাথা গোজার স্থায়ী আবাসস্থল। এলাকায় বইছে আনন্দের বন্যা। নৌপথটি সম্পূর্ণ সচল হলে উক্ত এলাকার মানুষের নৌপথে ব্যবসা বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটবে এবং দেশের অর্থনীতির চাকা সচল হতে সহায়তা করবে।

বিজ্ঞাপন

উক্ত প্রকল্পটি স্থানীয় মাননীয় সংসদ সদস্য (নেত্রকোনা-৩), আটপাড়াউপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য রাজনৈতিক এবং সামাজিক গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ পরিদর্শনপুর্বক সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন এবং উনাদের সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধানে উক্ত কাজটি সুষ্ঠুভাবে চলমান রয়েছে। এছাড়াও আটপাড়া উপজেলার সম্মানিত নির্বাহি কর্মকর্তা, এসি ল্যান্ড মহোদয় ও ফিল্ড সুভারভাইজার রোমানসহ কাজটি বাস্তবায়নে সার্বিক সহযোগিতা করছেন।

আরো পড়ুন: পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা দলের নেতৃত্বে এলে শেখ হাসিনার হাত আরো শক্তিশালী হবে- তথ্যমন্ত্রী

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here

বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

x