কথিত স্বামীই মূল পরিকল্পনাকারী কেন্দুয়ায় পোশাককর্মীকে গণধর্ষণ, তিন ধর্ষক গ্রেফতার

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) সংবাদদাতা \
ঈদের ছুটিতে বাড়িতে এসে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় কথিত স্বামীর সাথে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয় এক পোশাককমর্ী। এ ঘটনায় তিন ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে কেন্দুয়া থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, উপজেলার কান্দিউড়া ইউনিয়নের বৈরাটি গ্রামের রঙ্গ মিয়ার ছেলে টিপু মিয়া, একই গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে আমির হামজা ও সবুজ মিয়ার ছেলে আনোয়ার। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে টিপু মিয়াকে শনিবার (৮ জুন) সকালে নেত্রকোনা আদালতে পাঠানো হয়েছে।
এদিকে শনিবার (৮ জুন) বিকালে স্থানীয় সাংবাদিকদের নিয়ে এ ঘটনায় থানা প্রাঙ্গণে এক প্রেসব্রিফিং করেন কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান। প্রেসব্রিফিংয়ে ওসি রাশেদুজ্জামান সাংবাদিকদের কাছে ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ধর্ষিত নারীর কথিত স্বামী সুমনই হল নূরে আলম। সে বৈরাটি গ্রামের আব্দুল হামিদ ওরফে শম্ভু মিয়ার ছেলে। নূরে আলম তার পরিচয় গোপন করে ওই নারীর সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। ধর্ষিত নারী ও নূরে আলম দুজনই বিবাহিত এবং তাদের সন্তানও রয়েছে।
গ্রেফতারকৃত তিন ধর্ষকই জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে জানিয়ে ওসি আরো বলেন, ধর্ষণের ঘটনাটির মূল পরিকল্পনাকারীই হল কথিত স্বামী নূরে আলম ওরফে সুমন। দুজনই গাজীপুরে বসবাস করার সুবাদে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে নূরে আলম প্রতারণার মাধ্যমে ওই পোশাককমর্ীকে বিয়ে করে। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে তারা দুজনই নিজ নিজ বাড়িতে এসে গত বৃহস্পতিবার (৬ জুন) মোটরসাইকেলে করে বেড়াতে বের হয়। তবে বেড়াতে বের হওয়ার আগেই ধর্ষকদের সাথে ধর্ষণের পরিকল্পনা করে নূরে আলম। পরে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে কেন্দুয়া-মদন সড়কের শাপলা ব্রিকস ইটখলা এলাকায় মোটরসাইকেলটি বিকল হয়ে গেছে বলে গাড়ি থামিয়ে কৌশলে ওই নারীকে ইটখলার ভিতরে নিয়ে গিয়ে কথিত স্বামীর সামনেই পালাক্রমে ধর্ষণ করে টিপু, আমির হামজা ও আনোয়ার।
ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে এ সময় ওসি বলেন, তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে পাশ্ববতর্ী মদন, ঈশ্বরগঞ্জ ও গৌরীপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পালিয়ে থাকা তিন ধর্ষককে দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী কথিত স্বামী নূরে আলমকে গ্রেফতারের জোর তৎপরতা চলছে। তবে ধর্ষিতা তিন ধর্ষকের বিরুদ্ধে গত শুক্রবার (৬ জুন) মামলা দায়ের করলেও ওই মামলায় কথিত স্বামীকেও আসামী হিসাবে অন্র্Íভূক্ত করা হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here