13.7 C
New York
সোমবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২১

কু-প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় দুর্গাপুরে দরিদ্র পরিবারের বসতঘরে আগুন,মালামাল ভষ্মিভূত

বিজ্ঞাপন

কলিহাসান,দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)প্রতিনিধি:
নেত্রকোনার দুর্গাপুরে গাঁওকান্দিয়া ইউনিয়নের জাঙ্গালিয়াকান্দা গ্রামের আব্দুল বাতেন এঁর মাথা গোঁজার ঠাঁই একমাত্র বসত ঘরটিতে প্রতিহিংসার জেরে আগুন ধরিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। বসত ঘরে রক্ষিত মালামাল ভস্মিভূত হয়ে গেছে বলে জানাগেছে। গত ২৩ মার্চ মধ্যরাতে এ আগুনের ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় একটি চিহ্নিত চক্রের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগী। অভিযোগ দায়ের এর পর থেকেই প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে ওই চক্রটি।

বিজ্ঞাপন

সরেজমিনে গিয়ে জানাযায় ঐ গ্রামের আব্দুল বাতেন এর বাড়ীর দক্ষিণ ভিটির ১৪ হাত লম্বা ৮ হাত প্রস্থ কাঠ বাঁশ ছনের ছাউঁনি দুচালা বসতঘরটি ভিতরে থাকা মালামাল চৌকি খ্যাঁতা-বালিশ বাসনপত্র সহ পুড়েছাই হয়ে যায়। একই ভিটিতে থাকা ১০ হাত লম্বা ৭ হাত প্রস্থ আরেকটি বাঁশ ছনের ঘরে থাকা হাঁস-মুরগীসহ ঐ ঘরটিও পুড়ে ছাঁই করে দেওয়া হয়েছে।




বিজ্ঞাপন

বাড়ীর মালিক আব্দুল বাতেন এর স্ত্রী সাজেদা আক্তার প্রতিবেদককে বলেন, তাঁর স্বামী বাড়ীতে অবস্থান করেন না। নারায়নগঞ্জে রিক্সা শ্রমিকের কাজ করে। এই সুযোগে একই গ্রামের আঃ ছাত্তারের পুত্র নারীলোভী লম্পট চরিত্রের কুদ্দুছ মিয়া(৩০)দীর্ঘ সময় ধরে তাঁকে বিরক্ত করে আসছে। প্রায় সময়ই তাকে যৌন সঙ্গমের প্রস্তাব দিতো। সাজেদা কোনক্রমেই তাঁর এ প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় বাড়ীর সুপারী গাছের চাড়া,লাউ গাছ সহ বিভিন্ন সবজি গাছের ক্ষতি সাধন করে ঐ নারীলোভী লম্পট কুদ্দুছ মিয়া।

বছর খানেক আগে খরের ছানাতে আগুন দিয়ে অন্তত ৩০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। এর পরবর্তী সময় অর্থাৎ অনুমান ৭/৮ মাস আগে আবারো ছাগল রাখার ঘরে আগুন ধড়িয়ে দেয়, ছোটা ছুটি করে প্রাণে রক্ষা পায় ৭টি ছাগল। এসব ঘটনায় মৌখিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে অনুমান ৬মাস আগে স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল আলী,সাবেক মেম্বার জাহের আলী,জাঙ্গালিয়াকান্দা সরঃ প্রাঃ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ইদ্রিস আলী ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক তাজ উদ্দিনসহ অসংখ্য ব্যক্তির উপস্থিতিতে এক গ্রামীণ সালিশ অনুষ্ঠিত হয়। ওই সালিশে প্রমাণিত হয় যে ঐ কুদ্দুছ মিয়া এ সকল কর্মকান্ড ঘটিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

গ্রাম্য সালিশের মাতবর কুদ্দুছ মিয়াকে সতর্ক করে দেন যে, পরবর্তী কোন ঘটনা ঘটলে তা কুদ্দুসের উপরই ভর্তাবে। এর পরবর্তী সময় অর্থাৎ গত ২৩ মার্চ ২০২০ মধ্যরাতে আবারো আব্দুল বাতেন এর ২টি ঘর মালামাল সহ পুড়িয়ে ছাই করে দেওয়া হয়।




ঐ গ্রামের রশিদ মিয়ার ছেলে বারেক ও মান্নান বলেন তারা বালুচরে শ্রমিকের কাজ শেষে বাড়ী ফেরার সময় রাত অনুমান সারে ১২টার দিকে আব্দুল বাতেন এর বাড়ীর দিক থেকে কুদ্দুছ ও অপরিচিত একজনকে দৌড়াইয়া যাইতে দেখেছেন। আব্দুল বাতেন এর স্ত্রী সাজেদা আক্তার প্রতিবেদককে আরো বলেন গত ২০ মার্চ শুক্রবার রাত অনুমান ১১/১২টার দিকে ঐ নারীলোভী লম্পট কুদ্দুছ মিয়া তার বসতঘরের দরজা ধাক্কাধাক্কি করে এবং খুলতে বলে। সে ভয় ভীতিতে রাতকাটিয়ে পরদিন তাঁর আতœীয় স্বজনের সাথে বিষয়টি খোলে বলে। সাজেদা খাতুনের স্পষ্ট ধারণা যে ঐ নারীলোভী লম্পট কুদ্দুছ মিয়া সঙ্গীয় লোকসহ তাঁর বাড়ীঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। এ বিষয়ে দুর্গাপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে এস আই আসাদুজ্জামান আসাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। অভিযোগটি এখনো এফআইআর হয়নি বলে জানান ক্ষতিগ্রস্তরা। এ ন্যাক্কারজনক ঘটনার সুষ্টু বিচার চান সাজেদা আক্তার ও তাঁর স্বামী আব্দুল বাতেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আঃ মতিন বলেন, অভিযোগকারী সাজেদাকে দীর্ঘদিন ধরে কুদ্দুছ মিয়া অত্যাচার উৎপীরণ করে আসছে। পূর্ব থেকে আমাকে বিষয়টি অবগত করে আসছে। তবে সর্বশেষ আগুন দেওয়ার বিষয়টি আমি পরে শুনেছি। সাজেদা গংদের ধারণা যে কুদ্দুছ আগুন দিয়ে তাঁদের ঘরবাড়ী পুড়িয়ে দিয়েছে,এ বিষয়ে সাব-ইন্সপেক্টর আসাদের সাথেও আমার কথা হয়েছে।

আরো পড়ুন>>> বারহাট্টায় দু’দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত ৭

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ সংবাদ

x