কেন্দুয়ায় ভাঙ্গা ঘরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন মুক্তিযোদ্ধা নূরু মিয়া

0
163
কেন্দুয়ায় ভাঙ্গা ঘরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন মুক্তিযোদ্ধা নূরু মিয়া

কেন্দুয়া প্রতিনিধিঃ নেত্রকোণার কেন্দুয়ার জমাজমিহীন এক মুক্তিযোদ্ধা নূর মিয়া। ১৯৯০ সনে মাসকা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত সদস্য ছিলেন বিধায় এলাকায় তিনি নূরু মেম্বার নামে পরিচিত। এক সময় জনপ্রতিনিধি থাকলেও নিজের ভাগ্যোন্নয়নে কিছুই করতে পারেননি। বরং একটি মাত্র ভাঙ্গ ঘরে পরিবার নিয়ে কষ্টে শিষ্টে জীবনযাপন করছেন এই মুক্তিযোদ্ধা। বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকালে উপজেলার মাসকা ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামে তার বাড়িতে গেলে কথা হয় মুক্তিযোদ্ধা নূর মিয়া ও তার স্ত্রী কোকিলা বেগমের সাথে।



নূর মিয়া তার জঙ্গলাকীর্ণ ১২ শতাংশ ভূমির উপর ঝংধরা ভাঙ্গা ঘরটি দেখিয়ে বলেন এ ঘরটিতেই স্ত্রী, ৩ ছেলে, ২ মেয়ে নিয়ে গাদাগাদি করে থাকি। চালের উপর টিনে অসংখ্য ছিদ্র হওয়ায় বৃষ্টির পানি হতে রক্ষা পেতে চালের উপর প্লাষ্টিকের চট দিয়ে রেখেছি। ভারি বৃষ্টি হলে আর চটে মানেনা। অর্থের অভাবে ঘরটি মেরামতও করতে পারিনা- ছেলে-মেয়ের বিয়ে দিতে পারছিনা। মু্িক্তযোদ্ধা স্ত্রী কোকিলা জানান, তাদের ৩ ছেলের মধ্যে বড় ২ জন রুহুল আমীন ও আল আমীন বেকার। ছোট ছেলে সাদ্দাম হোসেন ময়মনসিংহ আনন্দ মোহন কলেজে মাস্টার্সে পড়ে। দুই মেয়ের মধ্যে চাঁদনী আক্তার কেন্দুয়া কলেজে আই.এ পড়ে, ছোট মেয়ে পনি আক্তার রায়পুর মাদ্রাসায় পড়ে। আমাদের ভাঙ্গা ঘরের জন্য ছেলে-মেয়ের বিয়ে দিতে পারছিনা।



পার্টি এলেও ঘরের এই অবস্থা দেখে ফিরে যায়। একটু বৃষ্টি হলেই ঘরের ভিতর পানি পড়ে। তাই সরকারের কাছে একটি ঘর চাই। মুক্তিযোদ্ধা নূরু মিয়া আরও জানান, একমাত্র মুক্তিযোদ্ধা ভাতা দিয়েই ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়াসহ ৭ সদস্যের সংসার চালাতে হিমসিম খাচ্ছি। একমাত্র ভাঙ্গা ঘরটিতে বৃষ্টির মাঝে পরিবার নিয়ে থাকতে খুব কষ্ট হয়। বঙ্গবন্ধুর ডাকে যুদ্ধ করেছি। তার সুযোগ্যকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদের জন্য অনেক কিছু করছেন। শোনেছি তিনি আমাদের যার ঘর নেই তাদেরকে ঘর দিচ্ছেন। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে মাথাগুজার জন্য একটি ঘর চাই। একটি ঘরে হলে অন্তত নিশ্চিন্তে ঘরে থাকতে পারবো।

আরো পড়ুন>> বাউফলে নদীতে জেলেদের উপর হামলা; গুলি সহ ডাকাত আটক

আপনার মতামত লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here