1. durjoybangla24@gmail.com : durjoy bangla : durjoy bangla
  2. afzalhossain.bokshi13@gmail.com : Afjal Sharif : Afjal Sharif
  3. aponsordar122@gmail.com : Apon Sordar : Apon Sordar
  4. awal.thakurgaon2020@gmail.com : abdul awal : abdul awal
  5. sheblikhan56@gmail.com : Shebli Shadik Khan : Shebli Shadik Khan
  6. jahangirfa@yahoo.om : Jahangir Alam : Jahangir Alam
  7. mitudailybijoy2017@gmail.com : শারমীন সুলতানা মিতু : শারমীন সুলতানা মিতু
  8. nasimsarder84@gmail.com : Nasim Ahmed Riyad : Nasim Ahmed Riyad
  9. netfa1999@gmail.com : faruk ahemed : faruk ahemed
  10. mdsayedhossain5@gmail.com : Md Sayed Hossain : Md Sayed Hossain
  11. absrone702@gmail.com : abs rone : abs rone
  12. sumonpatwary2050@gmail.com : saiful : Saiful Islan
  13. animashd20@gmail.com : Animas Das : Animas Das
  14. Shorifsalehinbd24@gmail.com : Shorif salehin : Shorif salehin
  15. sbskendua@gmail.com : Samorendra Bishow Sorma : Samorendra Bishow Sorma
  16. swapan.das656@gmail.com : Swapan Des : Swapan Des
গফরগাঁও মের্সাস সততা (S.T.B) ব্রিকসকে সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ পরিবেশ অধিদপ্তরের - durjoy bangla | দুর্জয় বাংলা
শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ০৫:২০ পূর্বাহ্ন




গফরগাঁও মের্সাস সততা (S.T.B) ব্রিকসকে সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ পরিবেশ অধিদপ্তরের

দুর্জয় বাংলা ডেস্কঃ
  • সোমবার, ১৫ জুন ২০২০, ৩:১৪ অপরাহ্ণ
  • ১০২১ বার পঠিত

রাকিবুল হাসান আহাদ, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

গফরগাঁও উপজেলা পাগলা থানা উস্হি ইউনিয়ন ৪ নং ওয়ার্ড সানজিব গ্রামে মেসার্স সততা (S.T.B) ব্রিকস স্বত্বাধিকারীর/ মালিক মোঃ আলী আশরাফ দীর্ঘদিন যাবৎ পরিবেশগত ছাড়পত্র ছাড়াই লোকালয়ে ইটভাটার কার্যকম চালিয়ে যাচ্ছেন। ইটভাটার কারণে কৃষি জমি পুড়ে ছাই। ইটভাটার আশেপাশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,পাঁচবাগ ফাজিল মাদ্রাসা,পাঁচবাগ উচ্চ বিদ্যালয়,পাঁচবাগ গার্লস স্কুল,পাঁচবাগ ইবতেদিয়া মাদ্রাসা,পাঁচবাগ হাফেজিয়া মাদ্রাসা,পাঁচবাগ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ অসংখ্য স্কুল মাদ্রাসা ইটভাটার পাশে অবস্থিত। সানজিব গ্রামের আশরাফুল আলম মালেকের ৩০ শতাংশ জমি,মোঃ শরীফের ৩০ শতাংশ জমি, মোহাম্মদ আলীর ৩০ শতাংশ জমি,মোঃ ইব্রাহিমের ৪২ শতাংশ, মোঃ পবনের ১১ শতাংশ জমি হতো দরিদ্র কৃষকদের আর্তনাদ আমাদেরকে বাঁচান। মেসার্স সততা (S.T.B) ব্রিকসের মালিক সন্ত্রাসী দ্বারা অসহায় দরিদ্র কৃষকদের হুমকি ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বীরদর্পে ইটভাটার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এলাকাবাসী পরিবেশ অধিদপ্তরে অভিযোগের দায়ের করিলে,পরিবেশ অধিদপ্তর লিখিত সিদ্ধান্ত নেয়,ইটভাটা হতে আনুমানিক ১ কিলোমিটারের মধ্যে আবাসিক এলাকা এবং আনুমানিক ৬০০ মিটার দূরে উত্তর হারিনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকায় ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপনা (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩ (সংশোধিত,২০১৯) এর ধারা ৮ (৩)(ক) ও ৮(৩)(ঙ) অনুযায়ী ইটভাটার অবস্থান গ্রহণ যোগ্য না হওয়ায় ইটভাটাটির অনুকূলে দাখিল কৃত পরিবেশগত ছাড়পত্রের আবেদনটি না মঞ্জুর এবং একই সাথে অবিলম্বে ইটভাটার সকল কার্যক্রম সম্পূর্ণ রুপে বন্ধ করে সকল স্থাপনা অনত্র স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। বর্ণিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। ০৪/১২/১৪২৬ বঙ্গাব্দ ১৮/০৩/২০২০ খ্রিস্টাব্দ উপ পরিচালক পরিবেশ অধিদপ্তর ময়মনসিংহ জেলা কার্যালয়,ময়মনসিংহ। স্বারক নংঃ- ২২,০২,৬১০০,১৪২,৭১,১৭০,১৯,৫৩ আইন অনুযায়ী মেসার্স সততা ( S.T.B) ব্রিকসের পরিবেশগত ছাড়পত্র না থাকায় কমিটির ৩২ তম সভার (ক)/১৭ সিদ্ধান্ত মোতাবেক পর্যালোচনা করে অন্য জায়গায় স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত করা হয়।

পরিবেশ অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্য মতে, ইটভাটার কালো ধোঁয়ার সঙ্গে কার্বন, সালফার ও নাইট্রোজেন নির্গত হয়। যা বাতাসের সঙ্গে মিশে রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে সালফার-ডাই-অক্সাইড, কার্বন-ডাই-অক্সাইড, কার্বন মনো-অক্সাইড ও নাইট্রোজেন-ডাই-অক্সাইড তৈরি করে। রাসায়নিক ওই যৌগগুলোর কারণে ইটভাটা পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের মানুষ সর্দি, কাশি, হাঁপানি, শ্বাসকষ্টসহ নানা চর্মরোগে রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন।

ইটভাটার কালো ধোঁয়ার সঙ্গে বিভিন্ন যৌগ বাতাসের সঙ্গে মিশে তা পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে। যা দেখতে কালো পাউডারের মতো। এই পাউডার মূলত নিঃশ্বাসের সঙ্গে মানুষের শরীরে ঢুকে ফুসফুসকে আক্রান্ত করে। এছাড়া ওই পাউডার ফসলি জমির উপর পড়লে জমির উর্বরতা কমে যায়। টিনের চালেও পড়ে আস্তে আস্তে টিন ফুটো করে দেয়।

পাগলা থানা উস্হি ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড সানজিব গ্রামের ফয়জুল ইসলাম রনি জানান, তার পরিবারের সদস্যদের বিশেষ করে শিশুদের জ্বর, ঠাণ্ডা, কাশি লেগেই থাকে। প্রতি বছরই ঘরের টিনের চালা ও বেড়া পরিবর্তন করতে হয়। কালো ধোঁয়ার পাউডারের কারণে টিনের চালা, বেড়া ফুটো হয়ে যায়।

এছাড়া ভাটাগুলোতে ফসলি জমির মাটি বেশি ব্যবহার করা হয়। জমির উপরের অংশের মাটি কাটার কারণে মাটির আরপিএইচর (মাটির অম্ল) মাত্রা কমে যায়। ফলে ওই সব জমিতে ফসল উৎপাদন অনেক কমে আসে।

মেসার্স সততা (S.T.B) ব্রিকসের মালিক মোঃ আলী আশরাফ বলেন,গফরগাঁওয়ে এ যাবৎ কালে ময়মনসিংহ পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে বহু চিঠিই আসে আমাদের কাছে কিচ্ছুই করতে পারে না,আমরা ছাড়পত্র ছাড়াই ইটের ভাটা চালায়। টাকা থাকলে আইনের সমস্যা নাই।

এই ব্যাপারে গফরগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মাহবুবুর রহমান বলেন ছাড়পত্র ছাড়া আইনগত দন্ডায়মান অপরাধ,আমার হাতে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে চিঠি আসলে মেসার্স সততা (S.T.B) ব্রিকসের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্হা নিবো।

আপনার মতামত লিখুনঃ
নিউজটি সেয়ার করার জন্য অনুরোধ রইল!
এই জাতীয় আরো সংবাদ







©২০১৩-২০২০ সর্বস্তত্ব সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা

কারিগরি সহযোগিতায় দুর্জয় বাংলা