গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বক্সকালভার্ট নির্মাণে ধীরগতি জনগণের দুর্ভোগ চরমে

শারমীন সুলতানা মিতু :

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বক্সকালভার্ট নির্মাণে ধীরগতি জনগণের দুর্ভোগ চরমে

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ২২ নং ওয়ার্ডের রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তা টু বাংলাবাজার রাস্তায় বক্স কালভার্ট নির্মাণে ধীরগতি ও ব্যাপক অ-পেশাদারিত্ব লক্ষ্য করা গেছে।

গত দুই মাস আগে পুরাতন কালভার্ট ভেঙ্গে নতুন কালবার্ড নির্মাণের কাজ ধরা হয়, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হামিম ইন্টারন্যাশনাল কাজ পায়। শুরু থেকেই কাজে ধীরগতি লক্ষ্য করা যায়। বিকল্প রাস্তা না করে কালভার্ট নির্মাণ কাজ করার ফলে প্রতিনিয়ত জনগণ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে এবং ঘটছে দূর্ঘটনা।

দুপাশে হাজার হাজার গাড়ি পথচারী পারাপারে পড়তে হচ্ছে বিরম্বনায়। কালভার্ট নির্মাণে যে সমস্ত নির্মাণ সামগ্রী লাগে তার অপ্রতুলতা লক্ষ্য করা গেছে। প্রথমে কালভার্টের নিচে কোন রকম পাইলিং এর ব্যবস্থা করা হয়নি।



নিম্নমানের খোয়া বালি দিয়ে নিচের অংশ সিসি ঢালাই দেওয়া হয়। পরবর্তীতে পাশের ড্রেনের পানি না বেঁধেই ঢালাই এর আয়োজন করা হয়। যার ফলে ময়লা পানি ও কাদায় একাকার।

যেখানে রাস্তার ছোট ঢালাইয়ে রেডিমিক্স এর মাধ্যমে ঢালাই দেওয়া হয়, সেখানে সেকেলে পদ্ধতিতে কালভার্টের মতো গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হাতে বানানো ঢালাই দেয়া হচ্ছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে ইঞ্জিনিয়ার ব্যতীত ঢালাই চালু করলে পরক্ষণেই মিডিয়া জানাজানি হলে সিনিয়র কনসালটেন্ট ইঞ্জিনিয়ার কাজ পর্যবেক্ষণে চলে আসে, তিনি এসে কালভার্টের নিচের মাপে ব্যত্ব্যয় পাওয়াতে সাইট ফোরম্যান কে শাসায়। ঢালাই এর মধ্যে ফাঙ্গাস প্রতিরোধক না থাকায় ঢালাই বন্ধ করে দেয়া হয়।

সিনিয়র কনসালটেন্ট ইন্জিনিয়ার মাহবুব আলমকে প্রতিবেদক কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, রেডিমিক্স ঢালাই এর চাইতে হাতে বানানো ঢালাই ভালো এবং সিডিওলে তা দেয়ার অনুমতি আছে। কাঁচামালের মান যাতে সঠিক হয় তাতে আমরা তদারকি করছি। পরবর্তীতে সে সাইট ত্যাগ করে চলে যায়। ইঞ্জিনিয়ার চলে যাওয়ার পরে কাঁচামাল মাপার পাতিগুলো সঠিকভাবে দিতে দেখা যায়নি।



২২নং ওয়ার্ড কমিশনার মোশাররফ হোসেন সকাল থেকেই কাজ তদারকিতে ব্যস্ত সময় পার করছিলেন।

কাজের মান নিয়ে সিটি কর্পোরেশনের ইন্জিনিয়ার পরিচয় দানকারী যুবায়ের হাসানের কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিবেদকের সাথে উত্যেজিত ও অসালিন ভাষা ব্যবহার করে বলেন আপনারা এগুলি বুজবেননা।

নির্মাণ কাজ তদারকী পরিচয় দানকারী শহিদুল ইসলামের সাথে কাজ নিয়ে জানতে চাইলে সে বলেন এটা হামিম ইন্টারন্যাশনালের কাজ এর মালিক লুবনা খানম, এ বিষয়ে আমি কোন কথা বলতে পারবোনা।

যেখানে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন শুরু থেকেই গাজীপুরের উন্নয়ন কাজে ব্যাপক ভূমিকা পালন করছে, সেখানে নির্মাণ কাজ তদারকীর অভাবে কাজের সঠিক মান পেতে জনগন বঞ্চিত হচ্ছে।

আরো পড়ুন: শ্রীনগরে ডাকাতির চেষ্টাকালে আটক ১

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here