তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কে সীমাহীন দূর্ভোগ:দেখার কেউ নেই!

0
145
তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কে সীমাহীন দূর্ভোগ:দেখার কেউ নেই!

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জ জেলার গুরুত্বপূর্ণ একটি উপজেলা হচ্ছে তাহিরপুর। আর এই উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ প্রধান সড়ক হচ্ছে-তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়ক। প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে বিভিন্ন মালামাল ও যাত্রী পরিবহণ করাসহ দেশ-বিদেশ থেকে আগত পর্যটকরা বিভিন্ন যানবাহন নিয়ে চলাচল করে থাকে। কিন্তু তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কটির বেহাল অবস্থার কারণে সীমাহীন র্দূভোগ পোহাতে হচ্ছে সবাইকে। অথচ এখানে রয়েছে বালি ও পাথর সমৃদ্ধ যাদুকাটা নদী। আরো রয়েছে বাংলার আলোচিত দৃষ্টি নন্দন পর্যটন কেন্দ্র টাংগুয়ার হাওর,টেকেরঘাট, বারেকটিলা ও শিমুলবাগান। এছাড়াও রয়েছে কয়লা ও চুনাপাথর আমদানীর ৩টি শুল্কস্টেশন। সরকার প্রতিবছর এই তাহিরপুর উপজেলা থেকে আদায় করছে কোটিকোটি টাকা রাজস্ব। তারপরও এই উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ ‘‘তাহিরপুর-বাদাঘাট” সড়কটির নিমাণ কাজ গত ৩০বছরেও শেষ হয়নি।



কেন এই সড়কটির নির্মাণ কাজ শেষ হচ্ছে তা জানতে সরেজমিন গিয়ে জানাগেছে-জেলার জনগুরুত্বর্পূণ তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কের মোট দৈর্ঘ্য সাড়ে ৮ কিলোমিটার। তার মধ্যে তাহিরপুর সদর হতে টাকাটুটিয়া ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার আরসিসি পাকা সড়ক। যার বেশির ভাগ অংশ ভাংগা। এসড়কের পোছনারঘাট এলাকা হতে পাতারগাঁও গ্রাম হয়ে চকবাজার পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার পুরোটাই মাটির সড়ক। আর এই ১ কিলোমিটার সড়কের কাজ গত ২ যুগেও শেষ হয়নি। অথচ প্রতিবছর এই ১ কিলোমিটার মাটির সড়কটি নির্মাণ করার জন্য সরকার কর্তৃক লক্ষলক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। শুধুমাত্র অনিয়ম ও দূর্নীতির কারণে এই ১ কিলোমিটার মাটির সড়কটি বর্তমানে লক্ষলক্ষ মানুষের চরম ভোগান্তির কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। আর চকবাজার হতে বাদাঘাট বাজার পর্যন্ত বাকি ৪ কিলোমিটার রয়েছে পাকা সড়ক। এই সড়কটি আংশিক ভাংগা হলেও মানুষ বিভিন্ন যানবাহন নিয়ে সারাবছর যাতায়াত করতে পারে। কিন্তু মাঝখানে অবস্থিত পোছনারঘাট হতে চকবাজার পর্যন্ত মাত্র ১ কিলোমিটার মাটির সড়কটি বর্যাকাল আসলেই পাহাড়ি ঢলে ভেঙ্গে যায়। এবং এই সড়কের কয়েকটি স্থান পানিতে ডুবে যাওয়ার কারণে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। তাই বর্যার প্রায় ৩-৪ মাস জীবনের ঝুকি নিয়ে এই ডুবন্ত জায়গা নৌকা দিয়ে পারাপার হতে হয়।



আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিরা কয়েকটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে স্থানীয় নেতৃবন্দদের সহযোগীতায় উপজেলা প্রশাসনকে ম্যানেজ করে প্রতিযোগীতার মাধ্যমে লক্ষলক্ষ টাকার বিনিময়ে ভাংগা সড়কটি লিজ নেয়। এরপর সারাবছর মাটির সড়কের উপর চলে টাকা খেলা। কিন্তু এসব অনিয়ম ও দূর্নীতি যেন দেখার কেউ নেই। এব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলার বাসিন্দা রহিম উদ্দিন,আব্দুস সালাম,নুর আলী,আশরাফ আলী,আব্দুর রহমান,ইসলাম উদ্দিনসহ আরো অনেক ভোক্তভোগীরা বলেন, তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কের সাড়ে ৮ কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে মাত্র ১ কিলোমিটার মাটির রাস্তা “পোছনারঘাট হতে চকবাজার” পর্যন্ত সঠিক ভাবে নির্মাণ করলেই সারাবছর বিভিন্ন যানবাহন দিয়ে মানুষ যাতায়াত করতে পারত। কিন্তু এলজিইডির সহযোগীতায় সংশ্লিস্ট ঠিকাদাররা অসময়ে রাস্তার নির্মাণ কাজ করার কারণে জনগুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটির নির্মাণ আজ পর্যন্ত শেষ হয়নি।



উজান তাহিরপুর গ্রামের রিক্সাচালক শামসু মিয়া বলেন-আমার শান্তি পরিবহণ নিয়ে খুবই অশান্তির মাঝে আছি শুধুমাত্র সড়কের বেহাল অবস্থার জন্য। কিন্তু কবে শেষ হবে তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কের নির্মাণ কাজ। তাহিরপুর উপজেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ ইকবাল করিব বলেন-তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কের বিষয়ে আমি আমার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রতিবেদন পাঠিয়েছি,প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্ধ পেলে এই সড়কটির নির্মাণ কাজ সম্পর্ণ করা সম্ভব হবে। তাই এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহযোগীতা কামনা করছেন তাহিরপুর উপজেলার লক্ষলক্ষ অসহায় ভোক্তভোগী জনসাধারণ।

আরো পড়ুন>> ঝিনাইগাতীতে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত

আপনার মতামত লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here