13.7 C
New York
মঙ্গলবার, আগস্ট ৩, ২০২১

দুর্গাপুরে বন্যায় সোমশ্বেরী নদী গর্ভে ৬টি বসতঘর বিলিন,৫০টি ঘর-বাড়ি ঝুঁকিপূর্ণ

বিজ্ঞাপন

কলিহাসান,দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)প্রতিনিধি:

বিজ্ঞাপন

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে টানা ভারী বর্ষণ ও মেঘালয় থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তিন গ্রামের ৬টি বসত ঘর সোমশে^রী নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। নদীর পাড় ঘেঁষে গড়ে ওঠা ওইসব বসতিদের আরো ৫-৬জন নিজেদের ঘর নিজেরাই ভেঙে নিয়ে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

শনিবার দুপুরে ভাঙনকবলিত এলাকা ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার কুল্লাগড়া ইউনিয়নের ভুলিপাড়া, বড়ইকান্দি, খামারখালী গ্রামের বন্যার পানির স্রোতে সোমেশ^রী নদীর পাড় ভেঙে যায়। ওই গ্রামের অসংখ্য পরিবার নদীর পারে বসবাস করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।

বিজ্ঞাপন

নদী ভাঙনের ফলে খামারখালী বাজারের পুরো অংশই নদী গর্ভে হারিয়ে গেছে।হঠাৎ বন্যার পানির আগমনে নদীর পাড়ে বসতিরা পড়েছে বিপাকে। নদীর পাড়ের প্রবল স্রোতে নিচ দিয়ে গর্তের সৃষ্টি হয়ে দেবে গেছে। তিনটি গ্রামের ৬টি পরিবারের ঘর-বাড়ি নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়।ভয় ও আতঙ্ক নিয়ে ৫-৬ টি পরিবার তাদের ঘর-বাড়ি ভেঙে নিয়ে গেছে। চরম ঝুঁকিতে রয়েছে ৫০টির বেশি পরিবার। যেকোন সময় নদী গর্ভে তাদের ঘরবাড়ি বিলিন হতে পারে বলে আতঙ্কে রয়েছেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সুব্রত সাংমা তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভাঙন কবলিতদের পাশে থেকে সব ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এসময় ইউপি মেম্বার শফিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড এর তত্বাবধায়ক এমদাদুল হক এর কাছে জানতে চাইলে বলেন,আমি গফরগাঁও আছি।পৌর সদরের কাচারী মোড়ে সবুর হোটেলে আমার সহকারীর নম্বর দেওয়া আছে। আপনি সেখানে গিয়ে তার সাথে কথা বলে ওয়াটার লেভেল জানুন বলে ফোন কেটে দেন।

ইউএনও ফারজানা খানম জানান, সোমেশ^রী নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর পাড় ভেঙে বেশক’টি ঘর বিলিন হয়ে গেছে খবর পেয়েছি। তবে আমি সরেজমিনে গিয়ে বিষয়টি দেখে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করারর আশ্বাস দেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here

বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

x