13.7 C
New York
বৃহস্পতিবার, জুন ১৭, ২০২১

দুর্গাপুর-কলমাকান্দা সড়কে ভাঙা কালভার্ট এখন মরণ ফাঁদ,সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা স্থানীয়দের

কলিহাসান, দুর্গাপুর (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি:

বিজ্ঞাপন

নেত্রকোণার জেলার দুর্গাপুর-কলমাকান্দা আঞ্চলিক সড়কের বুরুঙ্গা এলাকার ভাঙা ব্রিজ নামক কালভার্টটির মেঝেতে লোহার পাটাতনের অংশটা উঠে গেছে। চরম ঝুঁকি নিয়ে ওই সড়কে চলাচল করছেন পথচারীরা। যেকোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে এমন অভিযোগ স্থানীয়দের।

বিজ্ঞাপন

দীর্ঘদিন ধরে ওই ভেঙে যাওয়া ব্রিজটির সংস্কার অথবা মেরামতের কোন উদ্যোগ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। গত বুধবার বিকেলে সরেজমিন গেলে গর্ত হওয়া ব্রিজটির এ দৃশ্য চোখে পড়ে।

স্থানীয় ভুক্তভোগীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দুর্গাপুর-কলমাকান্দা সড়কে বুরুঙ্গা গ্রামের ভাঙা ব্রিজ নামক এ কালভার্ট দীর্ঘদিন ভাঙা থাকায় চরম ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহনসহ পথচারীরা।

বিজ্ঞাপন

দীর্ঘদিন ধরে সড়কে এমন অবস্থা বিরাজ করলেও সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। ফলে এলাকাবাসী ও পথচারীদের দুর্ভোগ দিন দিন বাড়ছে। রাতের আঁধারে যেকোন পথচারীর বড় ধরনের দূর্ঘটনার সম্মুখীন হতে পারেন বলে শঙ্কায় ভুগছেন তারা।

সরজমিনে দেখা যায়, উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের বুরুঙ্গা ব্রিজ মোড় এলাকায় (দুর্গাপুর-কলমাকান্দা) সড়কে সামনে এ কালভার্টটি প্রায় ২মাস আগে ভেঙে যাওয়ায় ওই রাস্তা দিয়ে ছোট-বড়(অতিরিক্ত বালুবাহী ট্রাক) যানবাহন অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে চলাফেরা করছে।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, আমার বাসা সংলগ্ন রাস্তার সামনে প্রায় দুই মাস ধরে এ কালভার্ট গর্ত হয়ে পড়ে আছে। ওই ভাঙা কালভার্টে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। সংকেত হিসেবে ভাঙা কালভার্টের ওপর লাল কাপড় টানিয়ে রেখেছিলাম। রাতের আঁধারে সেটি ফেলে দেয়। লোহার পাটাতনের ওপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে ছোট-বড় যানবাহন দিবা-রাত্রি চলাচল করছে। অতিদ্রুত কালভার্ট টি পুননির্মাণ করা প্রয়োজন।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মো. আমিনুল ইসলাম মৃধা এ প্রতিবেদককে জানান, কালভার্ট ভাঙা থাকায় সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ হিসেবে ইতিমধ্যে সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে। ব্রিজটি নির্মাণে জরুরী ভিত্তিতে একটি প্রকল্পের চাহিদা পাঠানো হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনকে অবগত পূর্বক বালুবাহী অভার লোডেড গাড়ী চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অতিরিক্ত লোড গাড়ী চলাচলে যেকোন সময় ব্রিজটি ভেঙে বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে। আশি করছি অচিরেই ব্রিজটির একটি সমাধান আসবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রাজীব উল আহসান বলেন, ঝুঁকিপূর্ন ব্রিজটির ব্যপারে অবগত রয়েছি। তবে উপজেলা প্রকৌশলী এটির পুননির্মাণ কল্পে চাহিদা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠিয়েছে। তবে অতিরিক্ত লোড ট্রাক চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ| ঝিনাইদহে ২ ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে জরিমানা

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ সংবাদ

x
error: Content is protected !!