দেওয়ানগঞ্জে জন্মের আগেই মৃত্যু হয়েছে হারুয়াবাড়ী ব্রীজ

হারুন-অর-রশিদ দেওয়ানগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ডাংধরা ইউনিয়নের হারুয়াবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে হারুয়াবাড়ী টু বাগানবাড়ী রাস্তার মাঝে, হারুয়াবাড়ী সঃ প্রাঃ বিঃ এর সামনের ছোট্ট একটা খাল, বন্যা মৌসুম সহ প্রায় সাত মাস থাকে পানি, এ রাস্তায় হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে, কাদা জলের ভাঙ্গায় স্কুল পড়ুয়া ছাত্রছাত্রী বা কাউনিয়ার চর বাজার মুখি ব্যবসায়ীদের হরহামেশাই জলকাদায় স্নান করতে হয় নিজেদের অজান্তেই।

এই অভিশাপ হতে মুক্তি চেয়ে শুভদিনের প্রহর গুনে আসছিলো এলাকার সাধারণ মানুষ। দুর্ভোগের এক পর্যায়ে মাননীয় এমপি মহোদয়, আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদ সাহেব এর সু নজরে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ অনুপ্রেরণায় ২০১২-১৩ অর্থ বছরে বাজেট প্রাপ্ত হয়।

২০১৩ সালে ঠিকাদার আলহাজ্ব মুমিনুল ইসলাম (লাল মিয়া মুহুরী) দায়িত্বে ব্রীজটি সম্পন্ন করার আগেই ভেঙ্গে দুমড়েমুচড়ে পড়ে। পুর্বের তুলনায় জন দূর্ভোগ সৃষ্টি হয় আরও চরমভাবে ।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায় যে, নিম্নমানের কাজ করার কারনে ২০১৩ সালে ব্রীজটি সম্পন্ন হওয়ার আগেই ভেঙ্গে গেছে। শুরু হয় এপার ওপার ১৫ টি গ্রামের প্রায় হাজার হাজার মানুষের চরম দূর্ভোগ।

কৃষক আঃ আলীম জানায়- ব্রীজ হওয়ার পূর্বে এখানকার আশেপাশের প্রায় ২৫ -৩০ একর জমিতে ইরি (বোরো) ধান চাষাবাদ হতো, ব্রীজ ভেঙ্গে পানির স্রোতের গতিপথ তীব্র ও পরিবর্তন হলে সেখানে বড় আকারে গর্তের সৃষ্টি হয়ে আশেপাশের জমি অনাবাদি হয়েছে।

আঃ বাছেদ বলেন- আমাদের পুর্বপারের মানুষের চলাচল করা খুব কঠিন হয়েছে। এই ভাঙ্গা ব্রীজের আশেপাশে রয়েছে ৫ থেকে ৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ ডজনখানেক ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান।

হাজার হাজার জনতার প্রাণের দাবী, কমলমতি শিক্ষার্থীদের নিরাপত্ত্বার কথা বিবেচনা করে অতিদ্রুত সময়ের মধ্যেই নতুন ব্রীজ নির্মাণ করে শান্তি প্রিয় জনসাধারণের দুর্ভোগ লাগবে কর্তৃপক্ষ সু দৃষ্ট দিবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here