13.7 C
New York
মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১

ধর্মপাশায় জলমহালে অবৈধভাবে দখলের চেষ্টার অভিযোগ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :

বিজ্ঞাপন

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার পাইকুরাটি ইউনিয়নের সুনই জলমহালটি সুনামগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির সহ সভাপতি সাধন ভৌমিক ও সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক রাখাব উদ্দিন ও তাঁর লোকজন জোরপৃর্বক অবৈধভাবে দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

বিজ্ঞাপন

গত বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার সুনই মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি সুবল চন্দ্র বর্মন এ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ( কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাখাব উদ্দিন ও সাধন ভৌমিক নির্দেশে বুধবার দুপুরে চন্দ্রন বর্মন নেতৃত্ব পার্শ্ববর্তী নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ ও বারহাট্টা উপজেলার থেকে সাধন ভৌমিক ও রাখাব উদ্দিনের পক্ষ বহিরাগত ক্যাডার বাহিনীর লোকজন দিয়ে’ জোরপূর্বক খলাঘর তৈরি করে প্রতিদিনই ইজারাদার সুবল চন্দ্র বর্মনে ও লোকজনদের ভয়ভীতি ও হুমকিদেখাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন



উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মনাই নদী প্রকাশিত সুনই জলমহালটি জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনাধীন। এর আয়তন ২২১ একর ১৮ শতক। জলমহালটির ইজারা নিয়ে সুনই মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতির সুবল চন্দ্র বর্মন ও মৎস্যজীবী সমিতির পক্ষ থেকে উচ্চ আদালতে দুটি মামলা করা হয়। আদালতের নির্দেশে সুনই মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি সভাপতি সুবল চন্দ্র ১৪২৭ বাংলায় গত ৩ জুন ২০২০ সালে ৩১ লাখ ৭৯ হাজার টাকা মূল্যে এক বছরের জন্য এটি ইজার মূল্য পরিশোধ করেন। ৪ ফেব্রুয়ারি জলমহালটির দখলনামা বুঝে নেন। সুনই মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি সুবল চন্দ্র বর্মন ও সদস্যেরা জলমহালে যান। পরে ওই জলমহালের দখলে থাকা লোকজনকে সেখান থেকে সরে যেতে বলেন বাখাব উদ্দিন ও সাধান ভৌমিকের লোকজন। পরে , তাঁদের বহিরাগত অর্ধশতাধিক ক্যাডার বাহিনী লাঠিসোঁটা ও দা নিয়ে সুনই মৎস্যজীবী সমিতির সভাপতি ও সদস্যদের তাড়িয়ে দেওয়া চেষ্টা করেন।

বিজ্ঞাপন



সুনই মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি সুবল চন্দন বর্মন বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশে সমিতির পক্ষ থেকে গত ৩ জুন ২০২০ সালে জলমহালটির ইজারা মূল্য বাবদ ৩১ লাখ ৭৯ হাজার টাকা পরিশোধ করেও এবং হাইকোর্টের নির্দেশেনা থাকা অবস্থায় রাখাব উদ্দিন ও সাধন বাবুর নেতৃত্বে একটি চক্র জলমহল দখলের চেষ্টার করে আসছে। সেই সঙ্গে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ ও বারহাট্টা উপজেলার থেকে সাধন বাবুর পক্ষ ক্যাডার বাহিনীর নিয়ে এসে আমাদের লোকজনদেনকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভতি ও হুমকিদেখাচ্ছে। আমরা দফায় দফায় ডিসি স্যার ও ইউএনও স্যারের কাছে অভিযোগ দিয়েছি, কিন্তু প্রশাসন কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সাধন ভৌমিক বলেন, ১৪২৭বাংলা পযন্ত আমাদের লিজ এটা আমাদের জলমহাল। হুমকি ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগ ঠিক নয়। রাখাব উদ্দিন বলেন, আমার বহিরাগত কোন ক্যাডার বাহিনী নাই ওই জলমালটি আমরা ইজার মূল্য পরিশোধ করেছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.মুনতাসির হাসান বলেন , এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগ আমি পেয়েছি।ঘটনাটি তদন্ত করে এ ব্যাপারে প্রজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



জেলা সমবায় কর্মকর্তা বশির আহমেদ বলেন, সুনই মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি সুবল চন্দ্র বর্মনের জলমহালটির বৈধ ইজারাদার। অবৈধ ভাবে জলমহাল দখলের চেষ্টা করা হলে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে জানতে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদের সরকারি ০১৭১৩-৩০১১৭৮ নম্বর মোবাইল ফোনে একধিকবার কল করা হলেও তিনি ফোনটি ধরেননি।

আরো পড়ুন: ভালুকায় হবিরবাড়ী ইউনিয়নে ৪ নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

বিজ্ঞাপন
x