1. durjoybangla24@gmail.com : durjoy bangla : durjoy bangla
  2. afzalhossain.bokshi13@gmail.com : Afjal Sharif : Afjal Sharif
  3. aponsordar122@gmail.com : Apon Sordar : Apon Sordar
  4. awal.thakurgaon2020@gmail.com : abdul awal : abdul awal
  5. sheblikhan56@gmail.com : Shebli Shadik Khan : Shebli Shadik Khan
  6. jahangirfa@yahoo.om : Jahangir Alam : Jahangir Alam
  7. mitudailybijoy2017@gmail.com : শারমীন সুলতানা মিতু : শারমীন সুলতানা মিতু
  8. nasimsarder84@gmail.com : Nasim Ahmed Riyad : Nasim Ahmed Riyad
  9. netfa1999@gmail.com : faruk ahemed : faruk ahemed
  10. mdsayedhossain5@gmail.com : Md Sayed Hossain : Md Sayed Hossain
  11. absrone702@gmail.com : abs rone : abs rone
  12. sumonpatwary2050@gmail.com : saiful : Saiful Islan
  13. animashd20@gmail.com : Animas Das : Animas Das
  14. Shorifsalehinbd24@gmail.com : Shorif salehin : Shorif salehin
  15. sbskendua@gmail.com : Samorendra Bishow Sorma : Samorendra Bishow Sorma
  16. swapan.das656@gmail.com : Swapan Des : Swapan Des
ফুটপাতে চা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ: শহীদ বুদ্ধিজীবীর ছেলের - durjoy bangla | দুর্জয় বাংলা
শনিবার, ১৫ অগাস্ট ২০২০, ১১:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনারসহ ১৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের শাহাদত বার্ষিকীতে সিএমপির আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল ময়মনসিংহে নানা আয়োজনে জাতির জনকের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন ইসলামপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর জাতীয় শোক দিবস উদযাপন। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে লৌহজংয়ে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত ২৬৪৪,মৃত্যু৩৪ কেন্দুয়ায় নানা আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী পালন ময়মনসিংহে শোক দিবসে বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের শ্রদ্ধা দোয়া মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত খিদিরপাড়ায় নানা আয়োজনে শোক দিবস পালিত শোক দিবসে ধানমন্ডি-৩২ এ গণপূর্তের প্রধান প্রকৌশলীর শ্রদ্ধা নিবেদন




ফুটপাতে চা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ: শহীদ বুদ্ধিজীবীর ছেলের

দুর্জয় বাংলা ডেস্কঃ
  • শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ৭:৪৭ অপরাহ্ণ
  • ২৭৪ বার পঠিত

অনলাইন ডেস্ক

ফুটপাতে চা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতে হচ্ছে রাজশাহীর শহীদ বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক এবং সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা এমএ সাঈদের ছেলে এসএম আলমগীর বাবলুকে।  
তার চায়ের স্টল নগরীর শিরোইল বাস টার্মিনালে। জানা গেছে, আলমগীর বাবলু এর আগে রিকশা চালাতেন।
বাবাকে নিয়ে বাবলু বলেন, ‘বাবা কৃষি বিভাগে চাকরি করতেন।




সাংবাদিকতা করতেন। নাটক করতেন। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের পর ভুবন মোহন পার্কে স্বাধীনতার পক্ষে যেসব মিছিল-সমাবেশ হতো, উপস্থিত থেকে নেতৃত্ব দিতেন সেখানেও। ওই মিছিলে জাতীয় নেতা শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনাসহ থাকতেন অনেকেই। তারা আমাদের বাসায়ও আসতেন। মায়ের গরুর মাংস রান্না পছন্দ করতেন খুব। ওনাদের সঙ্গে খুব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল আমাদের। ’
বাবলু বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর জুন মাসের মাঝামাঝিতে পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে আসে। তখন ষষ্ঠীতলা এলাকার একটি বাড়িতে থাকতাম আমরা।

খান সেনাদের একটি গাড়ি এল একদিন। তারা উর্দুতে বলল, ‘এই লাড়কা, সাঈদ রির্পোর্টার ক্যা মাকান কিধার হ্যায়?’ আমাদের বাসা না দেখিয়ে তখন আমি ইউনিক টেইলারের মালিকের বাসা দেখিয়ে দিলাম। গাড়ি ওই দিকে চলে যাচ্ছিল। হঠাৎ এক পিস কমিটির সদস্য পড়ল সামনে। তাকে এতই প্রশ্ন জিজ্ঞেস করল, ‘সাঈদ রিপোর্টার ক্যা মাকান কিধার হ্যায়?’




তিনি বলেন, ভয়ে মসজিদের পাশে লুকিয়ে গেলাম আমি। দেখছি সবকিছু। আটজন খান সেনা বাড়ি ঢোকে আমাদের। আমার চোখের সামনেই গাড়িতে তুলে নিয়ে যায় বাবাকে। বাড়িতে এসে দেখলাম মা কাঁদছেন। জিজ্ঞেস করতেই জানালেন, খান সেনারা মোহন পার্কের মিছিলের ছবি দেখিয়ে বাবাকে বলল, ‘এটা কার ছবি?’ আব্বা উত্তর দিলেন, ‘এটা আমার ছবি। ’ খান সেনারা বলল, ‘আমাদের বিরুদ্ধে আপনারা কেন এসব করছেন? মেজর পারভেজ আপনাকে ডেকেছেন, সার্কিট হাউসে যেতে হবে। ’




বাবলু আরো বলেন, বাবার সহযোগী স্টার স্টুডিওর মালিক মোতাহার হোসেন, ঘড়ি ঘরের মালিক নাসির আহমেদ বাবাকে খুঁজতে বের হলেন তারপর। বিভিন্ন জায়গায় খুঁজলেন, পেলেন না কোথাও। কিছু দিন পর শাহ মখদুম ইনস্টিটিউটের পিয়ন কাদের মিয়া এসে আমাদের জানালেন- ‘সাঈদ ভাইকে আর খুঁজবেন না। ওনাকেসহ ১৩ জনকে জোহা হলে খান সেনারা গুলি করেছে। সেখানে আমিও ছিলাম। গুলি লাগার আগেই আমি মাটিতে পড়ে যাই। মরার ভান করেছিলাম। খান সেনারা ভেবেছে আমিও মরে গেছি। তারপর সবাইকে গর্তে ফেলে দেয়। খান সেনারা চলে গেলে আমি লাশভর্তি গর্ত থেকে পালিয়ে আসি। ’ 




তিনি জানান, বড়ই অসহায় অবস্থায় দিনযাপন করছেন এখন বাবলু। সংসার আর চলে না। চার ছেলে ও চার মেয়েকে নিয়ে চরম অভাব-অনটনে বাস তার। আগে রিকশা চালাতেন। শিরোইল বাস টার্মিনালের সামনের ফুটপাতে চা বিক্রি করেন এখন। মাঝে মাঝেই ফুটপাত উচ্ছেদ হয়। বেকার হয়ে পড়েন তখন।
বাবলু আরও বলেন, ‘শহীদ সাংবাদিকের ছেলে হলেও আমার কোনো নিজস্ব ঘরবাড়ি নেই। মালদা কলোনিতে দুটি রুম ভাড়া নিয়ে বসবাস করি। প্রতিমাসে ভাড়া লাগে চার হাজার টাকা। স্টল চালিয়ে সংসারের খরচ জোগাড় হয় না। তাই টাকার অভাবে সন্তানদের পড়াশোনা বন্ধ হয়ে গেছে। তারাও এখন আমার সঙ্গে ফুটপাতে চা বিক্রি করে। তাদের চাকরি দরকার। কিন্তু কে দেবে?’




তিনি জানান, দেশ স্বাধীনের সময় এমএ সাঈদ ছিলেন তৎকালীন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। রাজশাহীতে আর্ট কাউন্সিল বর্তমানে পদ্মা মঞ্চ ও রাজশাহী প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতাদের একজন ছিলেন তিনি। রাজশাহী বেতার প্রতিষ্ঠাকালে বাংলা খবর পাঠক ও অভিনেতা ছিলেন। তিনি শহীদ হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু তার পরিবারকে সাড়ে তিন হাজার টাকা এবং একটি সার্টিফিকেট দিয়েছিলেন। পরে সার্টিফিকেটটি হারিয়ে যায়।
মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে রাষ্ট্রীয় যে ভাতা পান তা ১৩ ভাইবোনের মধ্যে ভাগ হয়ে যায়। ফলে বাবলু পরিবার নিয়ে এখনো অসহায় জীবনযাপন করছেন।
তথ্যসূত্র: দেশ রুপান্তর

আপনার মতামত লিখুনঃ
নিউজটি সেয়ার করার জন্য অনুরোধ রইল!
এই জাতীয় আরো সংবাদ
durjoybangla.conlm_৮ বছরে







©২০১৩-২০২০ সর্বস্তত্ব সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা

কারিগরি সহযোগিতায় দুর্জয় বাংলা