13.7 C
New York
বুধবার, আগস্ট ৪, ২০২১

বকশীগঞ্জে তদন্তের মাধ্যমে অব্যাহতি পেতে চায় ডিবি পুলিশি মামলার নির্দোষ আসামীরা

বিজ্ঞাপন

আফজাল শরীফ জামালপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

বিজ্ঞাপন

জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলার মেরুচর ইউনিয়নের বাঘাডোবা গ্রামে কালামের বসত বাড়ীতে মাদকদ্রব্য, তাসের মাধ্যমে টাকা বিনিময়ে জুয়া বেআইনি জনবদ্ধতা দমন করতে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশ কর্মকর্তার উপর অমানবিক হামলা মারপিট, কাটা, ফুলা, জখম, ও হত্যার উদ্দেশ্য জনিত ঘটনার সৃষ্টি কারীদের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়ার ডিবি পুলিশের এস আই জিকরুল ইসলামের দায়েরকৃত মামলায় নির্দোষ ব্যক্তিদের মুক্তি, দোষী ব্যক্তিদের বিচারের দাবী জানিয়েছে অত্র একালাবাসী।

গত ৫ জুন ২০২০ইং তারিখে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তা এস আই মোহাম্মদ জিকরুল ইসলাম এর দায়েরকৃত মামলা নং ৯৯ তাং- ০৪.০৬.২০২০ইং- ধারা ১৪৩/২২৪/৩২৩/৩২৫/৩২৬/৩০৭/৩৩২/৩৩৩/৩৫৬/৩৮৩/৩৪ মুলে জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ থানার বাঘাডোবা এলাকায় মাদকদ্রব্য উদ্ধার, জুয়া সংক্রামক বিশেষ অভিযান পরিচালানা কালে রাত আনুমানিক ১টা ২০ মিনিটের সময় বিশ^স্ত সূত্রে সংবাদ পেয়ে ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে কালামের বাড়ীর বসত ঘরে প্রবেশ করে কয়েকজন জুয়ারীর হাতে হাত কড়া পড়ালে পালিয়ে যাওয়া অন্য জুয়ারী ও তার আপনজনরা ডিবি পুলিশের উপর ক্ষীপ্ত হয়ে অর্তকিতভাবে হামলা, এলোপাথারী মারপিট করে জুয়ারীদের ছিনিয়ে নেয়।

বিজ্ঞাপন

এতে প্রায় ৭/৮জন ডিবি পুলিশ কর্মকর্তা গুরুত্ব ভাবে আহত কাটা, রক্তাক্ত ফুলা জখম ও প্রাণ নাশের হুমকিতে পড়ে যায়। খবর পেয়ে বকশীগঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনার স্থল থেকে তাদেরকে উদ্ধার করে। ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক মর্মাহত ও নিন্দনীয়।

এলাকাবাসী জানায়, যারা ঘটনার সৃষ্টিকারী অপরাধের সাথে জড়িত ও হাতে হাত কড়া লাগানো আসামীরা অনেকেই মামলার এজহারে তাদের নাম লিপিবদ্ধ হয়নি।
আর যারা ঘটনার সাথে জড়িত ছিলনা এবং তারা নিজ নিজ বাড়ীতে অবস্থানরত ছিল তাদের নাম এজহারে উল্লেখ করা হয়েছে।
আরও জানা যায়, মামলার এজহার ভুক্ত ১৬নং আসামী সফিকুল ইসলাম দীর্ঘ এক বছর যাবত স্ত্রী পুত্র নিয়ে ঢাকা কারণ বাজারে ব্যবসার কাজে নিয়োজিত আছে।

বিজ্ঞাপন

এবং অদ্যবধি ব্যবসা করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করছে। যারা পুলিশ কর্তপক্ষকে তথ্য দিতে গিয়ে দোষী আপনজনের নাম গোপন রেখে তার পূর্ব শত্রæদের নাম দিয়েছে।

সে ব্যক্তি আক্রোশ মিটাতে একাজ করেছে। কিন্তু গ্রাম এলাকায় সঠিক তদন্ত করলে তাদের ভাল মন্দ সম্পর্কে জানা যাবে।

তাই এলাকাবাসীর দাবী যারা নির্দোষ তাদেরকে ডিবি কর্তৃক মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হউক। আর যারা প্রকৃত দোষী তাদেরকে তদন্তের মাধ্যমে আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত বিচার করা হউক।

তা না হলে এলাকায় দিন দিন অপকর্ম বেড়েই চলবে এবং সাধারণ মানুষ গরু চুরির হাত থেকে রেহাই পাবে না।

মামলার এজহারভুক্ত ১৬, ২১, ২২, ও ২৪নং আসামীকে চার্জশীটে নাম উল্লেখ না করে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য পুলিশ কর্তৃপক্ষের আইনি সহানুভুতি কামনা করছে এলাকাবাসী ও সূধীজন।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here

বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

x