13.7 C
New York
Sunday, August 1, 2021

বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি বগুড়ার জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান।

বিজ্ঞাপন

দেশব্যাপী উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বেলা ১২ টা ৩০ মিনিটে বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি বগুড়া জেলা কমিটির পক্ষ থেকে বগুড়া জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। এসময় বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি বগুড়া জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

স্মারকলিপিতে করোনা মহামারীকালে সকল ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের পর্যাপ্ত খাদ্য, নগদ অর্থ ও চিকিৎসা সহায়তা দেয়ার দাবি জানানো হয়।

এতে আরো বলা হয়, ” সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশও আজ দীর্ঘ এক বছরেরও বেশী সময় ধরে করোনা মহামারীতে আক্রান্ত। করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের পরিবার নিয়ে বেঁচে থাকা আজ কঠিন হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় করোনায় লকডাউন চলাকালীন সময়ে সকল ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুর ও দরিদ্র মানুষের ঘরে খাদ্যর নিশ্চয়তা সরকারকেই দিতে হবে।

বিজ্ঞাপন

করোনা মোকাবেলায় লকডাউন একটি কার্যকরী পদক্ষেপ। কিন্তু লকডাউন কার্যকরের জন্য সাধারণ গরিব শ্রমজীবী মানুষের ঘরে খাদ্য পৌঁছানোর ব্যবস্থা নেই। ফলে মানুষ লকডাউনের মধ্যেও জীবনের ঝুঁকি নিয়েও কাজের আশায় ঘর থেকে বের হয়ে যান। ফলে এসব মানুষের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ছে। একদিকে ক্ষুধার যন্ত্রণা, অন্যদিকে করোনায় মৃত্যুকে সঙ্গী করেই এসব গরিব অসহায় মানুষের জীবন চলছে।

সকল গরিব মানুুষের তালিকা করে তাদের পল্লী রেশনিং এর আওতায় এনে সারা বছর কন্ট্রোল দামে রেশন প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।

বিজ্ঞাপন

করোনা মহামারিকালে সকল প্রকার ঋণের কিস্তি স্থগিত ও সুদ মওকুফ করতে হবে। গ্রামের শ্রমজীবী সাধারণ মানুষ স্বাভাবিক সময়ে ঋণ পরিশোধে এগিয়ে থাকেন। কিন্তু বর্তমান বাস্তবতায় এসব মানুষের সমস্যার কথা বিবেচনায় রেখে ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ ও সুদ মওকুফ করতে হবে।

গত বছর করোনা মহামারির সময়ে ৫০ লক্ষ পরিবারের তালিকা করে বিশেষ সহায়তা দেওয়ার কথা থাকলেও বাস্তবে আমরা দেখেছি সেখানে ব্যাপক দুর্নীতি-লুটপাট ও দলীয়করণ হয়েছে। যাদের সহায়তা পাওয়ার কথা, তারা সেই টাকা পাননি। তালিকায় ভুয়া নাম ও দুর্নীতির কারণে বরাদ্দকৃত অনেক টাকা বিতরণই করা হয়নি।

গত বছরের দুর্নীতির কথা মাথায় রেখে এবার যাতে কোন দুর্নীতি না হয় সঠিকভাবে তা দেখতে হবে। বিভিন্ন সমীক্ষায় দেখা গেছে, গত এক বছরে দেশে প্রায় আড়াই কোটি পরিবার নতুন করে দরিদ্র হয়েছে। সুতরাং আমাদের দাবি এবার সকল গরিব পরিবারকে আর্থিক ও খাদ্য সহায়তার আওতায় আনতে হবে।”

এছাড়া স্মারকলিপিতে প্রান্তিক বর্গাচাষীদের কাছ থেকে সরকারি দামে ধান ক্রয়, গ্রামীণ বরাদ্দ লুটপাট বন্ধ এবং আগামী বাজেটে গ্রামীণ শ্রমজীবী মানুষের জন্য সর্বোচ্চ বরাদ্দ রাখার জোর দাবি জানানো হয়।

আরও পড়ুনঃ পাবনায় অবৈধ যৌন উত্তেজক সিরাপ তৈরির কারখানা সিলগালা করে দিল জেলা প্রশাসন ও পুলিশ

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here

বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

x