মদনে অনশন করা সেই প্রেমিকার ডাক্তারি পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত

সাকের খান, মদন (নেত্রকোনা) সংবাদদাতা : নেত্রকোনার মদন উপজেলার তিয়শ্রী (উত্তর পাড়া) গ্রামের মৃত আজিজ মিয়ার মেয়ে সীমা আক্তার (১৯) নামের অনশন করা সেই প্রেমিকার ডাক্তারি পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত মিলেছে। নেত্রকোনার আধুনিক সদর হাসপাতালের ডাক্তার জান্নাত আফরোজ নূপুর ২২ সেপ্টেম্বর ভুক্তভোগীর কাছে এ রিপোর্ট হস্তান্তর করেছেন।



ফরেনসিক রিপোর্ট এর মাধ্যমে জানা যায়, গত ১০ আগস্ট নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছিল সেই প্রেমিক। হাসপাতাল থেকে ডাক্তারি পরীক্ষার রিপোর্ট মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে মর্মে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
এদিকে ভিকটিমের ভাই মামলার বাদী নোবেল অভিযোগ করে বলেন, আমাকে ও আমার পরিবারকে প্রতিনিয়ত বিবাদী রাসেল মিয়া মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিয়ে যাচ্ছে। এ নিয়ে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।



উল্লেখ্য যে, ৩ আগস্ট প্রেমিকার সীমা আক্তার প্রেমিকের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনশন করলে প্রেমিকের চাচাতো ভাই উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ তোফায়েল আহমেদ বিয়ের ব্যবস্থার আশ্বাসে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গণ্যমান্য লোকজনের উপস্থিতিতে তাকে তাদের বাড়িতে রেখে আসেন। পরে তিনি বিয়ের ব্যবস্থা করতে ব্যর্থ হলে ৮ আগস্ট সীমার ভাই নোবলে বাদী হয়ে তিন জনের নাম উল্লেখ করে আরো তিন জনকে অজ্ঞাত আসামী করে মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় প্রেমিক রুমেল ১০ সেপ্টেম্বর আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিজ্ঞ আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠান।

আরো পড়ুন: অনশনেও মন গলাতে পারেনি প্রেমিকের, পরে ধর্ষণ মামলা

আপনার মতামত লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here