মুক্তাগাছা উপজেলায় ২০১৯-২০ অর্থ বছরে উন্নয়নের মহোৎসব স্থানীয়দের ভিন্ন মত

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলায় অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচীর আওতায় ১ম পর্যায়ে ৬৩ টি প্রকল্প গ্রহণ করা হয় এর বিপরীতে ৩,৩৬,৮০,০০০/- টাকা ব্যয় বরাদ্দের ৪২১০ জন কার্ডধারী শ্রমিক দিয়ে শতভাগ কাজ করার দাবী করা হয়েছে। একই উপজেলার একই অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কাবিখা প্রকল্পের ১ম পর্যায়ে ১২ টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ৩১১৮৯৮১ মেঃ টন চাউল ব্যয় বরাদ্দ দেওয়ার মধ্যদিয়ে শতভাগ কাজ করার দাবী করেছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। অপরদিকে ১ম পর্যায়ে কাবিখা নন সোলার ১২ টি প্রকল্পের বিপরীতে ১৩২.২৬০৯ মেঃ টন চাউল বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন করেছেন বলে দাবী করেন।

একই সাথে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কাবিখা সাধারণ ২য় পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ১৫টি শুরু হওয়া প্রকল্পের মধ্যে ১২টি নন সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ১০২.২৬০৯ মেঃ টন চাউল ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ হয়েছে বলে জানা যায়। একই সাথে কাবিখা সাধারণ ২য় পর্যায়ে ১২টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ৩১১৮৯৮১ মেঃ টন চাউল ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন করেছেন বলে জানান। একই অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কাবিখা নির্বাচনী এলাকা প্রথম পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ১২টি নন সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ১৬০.৫৫ মেঃ টন চাউল ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ হয়েছে বলে দাবী করেন। অপর দিকে কাবিখা নির্বাচনী এলাকা ২য় পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ১২টি নন সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ১৬০.৫৫ মেঃ টন চাউল বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন করেছেন বলে দাবী করেন। ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কাবিটা নির্বাচনী এলাকা ১ম পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ২২টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ৪৪,১২,৮০০/- টাকা ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে দাবী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।



একই সাথে নির্বাচনী এলাকা কাবিটা ২য় পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ২২টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ৪৪,১২,৮০০/- টাকা ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন করেছেন বলে জানিয়েছেন। একই অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ টিআর নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক ১ম পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ৪৪টি গৃহীত প্রকল্পের মধ্যে ৩০টি নন সোলার প্রকল্পের কাজ শতভাগ সম্পন্ন করেছেন যাহার ব্যয় বরাদ্দের পরিমাণ ৪৯,৫৭,৬৬৬.৬৬৬/- টাকা ছিল। একই সাথে একই অর্থ বছরে নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক টিআর ১ম পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ১৭টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ৪২,৭২,৮৮৮.৯৫৮/- টাকা ব্যয় বরাদ্দের শতভাগ কাজ সম্পন্ন করার দাবী করা হয়। একই অর্থবছরে টিআর সাধারণ ১ম পর্যায়ে কর্মসুচীর আওতায় ৩৩টি নন সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ২৬,৫৬,১৩৯.৬৮/- টাকা ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন করার দাবী করেন। একই সাথে টিআর সাধারণ ১ম পর্যায় কর্মসূচীর আওতায় ১২টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ২৮,৯৬,১১০/- টাকা ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ হয়েছে বলে দাবী করা হয়। একই অর্থ বছরে নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক টিআর ২য় পর্যায় কর্মসূচীর আওতায় ৪৪টি নন সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ৪৯,৫৭,৬৬৬.৬৬৬/- টাকা ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন করেছেন বলে দাবী করা হয়। একই সাথে নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক টিআর ২য় পর্যায়ে কর্মসূচীর আওতায় ১৯টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ৪২,৭২,৮৮৮.৯৫৮/- টাকা ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ সম্পন্ন করার দাবী করা হয়। অপর দিকে একই অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ টিআর সাধারণ ২য় পর্যায় কর্মসূচীর আওতায় ২৬টি নন সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ২৬,৫৬,১৩৯/- ব্যয় বরাদ্দ দিয়ে শতভাগ কাজ করেছেন বলে জানান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।



একই সাথে টিআর সাধারণ ২য় পর্যায় কর্মসূচীর আওতায় ২৫টি সোলার প্রকল্পের বিপরীতে ২২,৮৭,৬৪০/- টাকা ব্যয় বরাদ্দ করে শতভাগ কাজ করার দাবী করা হয়। এ উপজেলায় নির্বাচিত সাংসদ সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বাবু’র কঠোর নির্দেশনায় প্রকল্প সমূহ শতভাগ বাস্তবায়ন করা হয়েছে বলে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দাবি করেন। অপরদিকে মুক্তাগাছা উপজেলার সবকয়টি ইউনিয়নের প্রকল্প সংশ্লিষ্ট এলাকার স্থানীয় গণ্যমান্য লোকজনসহ শ্রমিকদের সাথে আলোচনাকালে তারা জানান কোন কোন স্থানে প্রকল্পের কাজ না করেই বিল উত্তোলন করা হয়। আবার কিছু প্রকল্পের ৩০ শতাংশ কাজ করেই শতভাগ কাজ দেখানো হয়। এ ব্যাপারে বিস্তারিত প্রতিবেদন দেখতে দুর্জয় বাংলায় আমাদের পাশে চোখ রাখুন।

আরো পড়ুন> বারহাট্টায় ট্রেনে কাটা পড়ে ৩ জনের মৃত্যু

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

Please enter your comment!
Please enter your name here