1. durjoybangla24@gmail.com : durjoy bangla : durjoy bangla
  2. afzalhossain.bokshi13@gmail.com : Afjal Sharif : Afjal Sharif
  3. aponsordar122@gmail.com : Apon Sordar : Apon Sordar
  4. awal.thakurgaon2020@gmail.com : abdul awal : abdul awal
  5. sheblikhan56@gmail.com : Shebli Shadik Khan : Shebli Shadik Khan
  6. jahangirfa@yahoo.om : Jahangir Alam : Jahangir Alam
  7. mitudailybijoy2017@gmail.com : শারমীন সুলতানা মিতু : শারমীন সুলতানা মিতু
  8. nasimsarder84@gmail.com : Nasim Ahmed Riyad : Nasim Ahmed Riyad
  9. netfa1999@gmail.com : faruk ahemed : faruk ahemed
  10. mdsayedhossain5@gmail.com : Md Sayed Hossain : Md Sayed Hossain
  11. absrone702@gmail.com : abs rone : abs rone
  12. sumonpatwary2050@gmail.com : saiful : Saiful Islan
  13. animashd20@gmail.com : Animas Das : Animas Das
  14. Shorifsalehinbd24@gmail.com : Shorif salehin : Shorif salehin
  15. sbskendua@gmail.com : Samorendra Bishow Sorma : Samorendra Bishow Sorma
  16. swapan.das656@gmail.com : Swapan Des : Swapan Des
মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিসের বাসায় দুর্ধর্ষ ডাকাতি - durjoy bangla | দুর্জয় বাংলা
বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০, ০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বাংলা টিভির আশুলিয়া প্রতিনিধির বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অনুষ্ঠিত হচ্ছে না ট্রেনে বাতিল হওয়া যাত্রীদের টাকা ফেরত দেবে রেলওয়ে কোভিট মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থাগুলির ভুমিকা প্রশংসনীয়,সদস্য জাফর আলম মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে ভূমি অফিসের ভবন উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক মুন্সিগঞ্জে ৬শ পিছ ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ আটক ১ অতিরিক্ত আইজিপি’র পক্ষ থেকে গজারিয়া থানায় ঔষুধ ও মাস্ক বিতরণ অনলাইন পোর্টালের নিবন্ধন চলতি মাসেই: তথ্যমন্ত্রী দেওয়ানগঞ্জে বন্যার পানি বৃদ্ধি আড়িয়লবিলের শাপলায় স্বাবলম্বী কয়েক’শ পরিবার




মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিসের বাসায় দুর্ধর্ষ ডাকাতি

দুর্জয় বাংলা ডেস্কঃ
  • রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ৫:৪৬ অপরাহ্ণ
  • ২০১ বার পঠিত

 

আপন সরদার,মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আনিছ উজ্জামান আনিছ এর বাড়ীতে দূর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। শনিবার দিবাগত রাত ২ টার দিকে মুন্সীগঞ্জ শহরের মধ্য কোর্টগাও এলাকায় আনিছ উজ্জামানের নিজ বাড়িতে এই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এসময় ডাকাতদল অস্ত্রের মুখে অনুমান ৫০ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ইতোমধ্যে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন পিপিএম, সদর সার্কেল আশফাকুজ্জামান, সদর থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত সালাউদ্দিন গাজী।

পারিবারিক সুত্রে জানাগেছে বাড়ির দ্বিতীয় তলার গ্রীল না থাকা একটি জানালা দিয়ে প্রথমে একজন ডাকাত সদস্য প্রবেশ করে পরে তার সহায়তায় বাড়ির অন্য দরজা দিয়ে ৮-৯ জন ডাকাত সদস্য অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে প্রবেশ করে।

প্রথমে ডাকাতরা আনিছ উজ্জামানের বড় ছেলে জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি আক্তারুজ্জামান রাজিব এর রুমে প্রবেশ করে এবং পরে ছোট ছেলে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড এর সভাপতি জালালউদ্দিন রুমি রাজনের রুমে প্রবেশ করে এবং পরবর্তীতে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আনিছ উজ্জামানের রুমে ঢোকে। এসময় ডাকাতরা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে হাত পা বেঁধে ১০৫ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ ৫ লক্ষ টাকা লুট করে বলে পুলিশের কাছে দাবি করেছে আনিছ উজ্জামানের পরিবার।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আনিছ উজ্জামান ব্যক্তিজীবনে বিলাসিতা পছন্দ করেন না। তিনি খুব সাদামাটা জীবনযাপন করেন। সরকারি গাড়ি বরাদ্দ থাকলেও তিনি চড়েন রিক্সায়। তার দুই ছেলে বড় ছেলে আক্তারুজ্জামান রাজীব জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও ছোট ছেলে জালাল উদ্দিন রুমি রাজন `আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কমান্ডের` জেলা সভাপতির দায়ীত্ব পালন করছেন।

আক্তারুজ্জামান রাজীব জানান, ঘুমের মধ্যে আমাকে কে যেনো ডেকে তুলল। তখন আনুমানিক রাত ২টা হবে। পরে আমার বুকে অস্ত্র ধরে হাত বেঁধে ফেলে। এ সময় গলায় থাকা স্বর্ণের চেইনটা ছিনিয়ে নেয়। পরে তার কক্ষে লুটপাট করে অস্ত্রের মুখে ভবনটির দ্বিতীয় তলায় থাকা ছোট ভাই জালাল উদ্দিন রুমী রাজনের ঘরে নিয়ে যায় তাকে। তাকে দিয়েই অস্ত্রের মুখে মেয়ের অসুস্থতার কথা বলিয়ে কৌশলে রাজনের দরজা খোলায়। দরজা খুলতেই রাজনকেও মারধর করে অস্ত্রর মুখে বেঁধে ফেলে। পরে লুটপাট করে। পরে আমার বাবার নিচতলার কক্ষে আমাকে নিয়ে যায়। একই কৌশল অবলম্বন করে মেয়ের অসুস্থতার কথা বলে দরজা খোলায়। দরজা খুলতেই কক্ষে প্রবেশ করে ডাকাতদল তাকেও আঘাত করে। পরে তার কাছে চাবি চায়। টেবিলের উপর থেকে চাবী নিয়ে লুটপাট চালায়। এ সময় আনিস-উজ-জামানের স্ত্রী আমেরিকায় অবস্থান করছিলেন।

ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করে পুলিশ জানায়, ডাকাত দল প্রথমে ভবনের দ্বিতীয় তলায় পশ্চিম পাশের গ্রীল ছাড়া থাইগ্লাস দিয়ে আটকানো জানালা দিয়ে কোনভাবে একজন ভিতরে ঢোকে। দ্বিতীয় তলার পশ্চিম পাশে গোপন একটা দরজা আছে ভিতরে ও বাইরে ঢোকার জন্য। পরে ভিতর থেকে ঐ গোপন দরজা খুলে দিলে আরও ৭/৮ জন ডাকাত ভিতরে প্রবেশ করে। দ্বিতীয় তলায় চেয়ারম্যানের বড় ছেলে জেলা যুব লীগের সাবেক সভাপতি আক্তারুজ্জামান রাজীবের ঘরে প্রবেশ করে তাকে মারধর করে অস্ত্র ঠেকিয়ে বেঁধে ফেলে লুটপাট চালায়। পরবর্তীতে তার ছোট ভাই ও বাবাকেও রাজীবের মাধ্যমেই মেয়ের অসুস্থতার কথা বলে দরজা খোলতে বলে এবং দরজা খুললে তাদেরকেও অস্ত্রের মুখে বেঁধে ফেলে এবং লুটপাট চালায়।

সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনিস-উজ-জামান আনিস জানান, তার দুই ছেলে এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বাড়িতেই ছিলেন। বড় ছেলের ঘরে লুটপাট করে ছোট ছেলের ঘরে লুটপাট চালায়। সবশেষে আমার ঘরে প্রবেশ করে আমাকেও বেঁধে ফেলে চাবি নিয়ে লুটপাট চালায়। পরে ভোর ৪টার দিকে ডাকাতরা নগদ ৫ লাখ টাকা ও ১শ’ ৫ ভরি স্বর্ণ নিয়ে গোপন দরজা দিয়েই পালিয়ে যায়।

তিনি আরো জানান, ডাকাতদের ভাষা ছিল ফরিদপুর-শরীয়তপুর এলাকার বেল্ডের। ডাকাতরা স্থানীয় যাদের সহযোগিতা নিয়ে ডাকাতি করেছে, হয়তো তাদের সাথেই আত্মগোপন করে আছে। সঠিক তৎপরতা থাকলে ডাকাতদের ধরা যাবে। ডাকাতি করে তারা পশ্চিম দিক দিয়ে দেওভোগের দিক দিয়ে বেড়িয়েছে। তারা এখনও এ এলাকায়ই রয়েছে বলে মনে করছেন তিনি। তিনি আরও বলেন ডাকাতরা তাকে, তার দুই ছেলেকে ডাকাতি করার সময় মারধর করে। ভিতরে ৯ জনের একটি ডাকাতদল প্রবেশ করলেও বাইরে আরো ডাকাত ছিল।

আনিস-উজ-জামান আনিস সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সর্বশেষ কমিটির নির্বাচিত কমান্ডার এবং মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি আনিচুর রহমান বলেন, ডাকাতির ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এখনো থানায় লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে পুলিশ ঘটনায় কারা জড়িত তা বের করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

সদর সার্কেল আশফাকুজ্জামান জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, পিবিআইয়ের এসপি, সিআইডি, ডিবিসহ পুলিশ প্রশাসনের সর্বোচ্চ কর্তাব্যক্তিরা ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। তাদের বক্তব্যানুযায়ী প্রাথমিক তদন্তে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। পরবর্তীতে তদন্ত সাপেক্ষে বাকী তথ্য উদ্ঘাটন করা সম্ভব হবে। ৭-৮ জনের ডাকাত দল প্রবেশ করেছে। ১০৫ ভরি র্স্বণালংকার ও নগদ ৫লক্ষা টাকা ডাকাতদল লুট করেছে তার পরিবারের পক্ষ থেকে দাবী করা হয়েছে। মামলা হলে বুঝা যাবে তাদের ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ আসলে কত।

আপনার মতামত লিখুনঃ
নিউজটি সেয়ার করার জন্য অনুরোধ রইল!
এই জাতীয় আরো সংবাদ







©২০১৩-২০২০ সর্বস্তত্ব সংরক্ষিত | দুর্জয় বাংলা

কারিগরি সহযোগিতায় দুর্জয় বাংলা