13.7 C
New York
বুধবার, অক্টোবর ২৭, ২০২১

শ্রীপুরে চাচিকে বিয়ে করল ভাতিজা

রাকিবুল হাসান আহাদ, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

বিজ্ঞাপন

গাজীপুরের শ্রীপুরে ভাতিজা শরীফ বিধবা চাঁচিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক করেছেন বলে জানা যায়, অতঃপর গোপনে বিয়ে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শ্রীপুর মডেল থানায় বাদী হয়ে সালমা পিতা- মৃত মিন্নত আলী, সাং- নিজ মাওনা এ/পি সাং- নিমাইচালা, থানা- শ্রীপুর,জেলা- গাজীপুর,বিবাদী শরীফ মিয়া (২১) পিতা- নুরুল হক, শরীফের মা শেফালী (৪৫) স্বামী- নুরুল হক উভয় সাং- নিমাইচালা, বরমী ইউনিয়নের কাজী মহিউদ্দিন (৫৫) পিতা- অজ্ঞাত সাং- বরমী, সর্ব থানা- শ্রীপুর জেলা- গাজীপুরদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন সালমা আক্তার।

বিজ্ঞাপন

সালমা আক্তার বলেন,আমার প্রথম স্বামী আজিম উদ্দিন অনুমান ৪ বছর পূর্বে মারা যায়। মারা যাওয়ার পর হইতে ভাতিজা শরীফ আমাকে প্রেমের প্রস্তাবসহ বিভিন্ন ভাবে ফুসলাইয়া আসিতে থাকে। শরীফ সম্পর্কে আমার ভাতিজা হওয়ায়, আমি উক্ত প্রেমের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলে আমাকে নানাভাবে ভয়প্রদর্শন করে,যার ফলে উক্তরূপ আচরনে শরীফের সাথে আমার প্রেমের সম্পর্ক গড়িয়া উঠে এবং আমাকে বিবাহ করিবে বলিয়া আমার সাথে একাধিকবার শারীরিক মেলামেশা করে। পরবর্তী সময়ে আমার ভাতিজা শরীফকে বিবাহের জন্য চাপ দিলে বিগত ১৫/০৯/২০১৯ইং তারিখে বরমী ইউনিয়নের বরমী বাজারের কাজী (কেন্দুয়া রোড) মহিউদ্দিনের এর সাথে আতাত করিয়া শরীফ কাজী অফিসে নিয়া কাজীর মাধ্যমে আমাদের বিবাহ সম্পন্ন করে।

বিবাহের পর হইতে আমি ও স্বামী শরীফকে নিয়ে শফিক মোড় জনৈক হুমায়ুন এর বাড়ী ও পরে টেপিরবাড়ী ইসমাইল মৃধা’র বাড়ী ভাড়া নিয়া স্বামী-স্ত্রী হিসাবে ঘর সংসার করিয়া আসিতেছি। বেশ কিছুদিন পুর্ব হইতে স্বামী শরীফের মা আমার শাশুড়ী শেফালীর কুপরামর্শে ও প্ররোচনায় আমার সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়া অহেতুক ঝগড়া বিবাদের সৃষ্টি করিয়া আমাকে প্রায়ই অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ আমার নিকট যৌতুক বাবদ ২ লক্ষ টাকা দাবী করে। আমি যৌতুক দিতে পারিবনা বলিলে স্বামী শরীফ আমাকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে অত্যাচার নির্যাতন করিয়া আসিতে থাকিলে অনুমান একমাস পূর্বে আমার প্রথম স্বামীর বাড়ীতে অর্থাৎ এ/পি ঠিকানায় চলিয়া যায়। ইহার পর হইতে শরীফ আমার কোন খোজ খবর নেয় না বা আমার কোন ভরন পোষন করে না। বিগত প্রথম ঘটনার তারিখ অর্থাৎ ২৮/১১/২০২০ইং তারিখ রাত্র অনুমান ৮.০০টার সময় শরীফ আমার এ/পি ঠিকানার বাসায় আসিয়া তাহার পূর্বের দাবীকৃত যৌতুকের ২ লক্ষ টাকা দাবী করে। আমি যৌতুক দিতে পারিবনা বলিলে স্বামী শরীফ আমাকে এলোপাথারী মারপিট করিয়া বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিয়া চলিয়া যায়।

বিজ্ঞাপন

এরই ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় ঘটনার তারিখ ১৫/১২/২০২০ইং তারিখ সকাল অনুমান ৮.০০টার সময় শরীফের মা আমার শাশুড়ী আমাকে সংবাদ দিলে আমি তাহার কথা সরল ভাবে বিশ্বাস করিয়া তাহাদের বাড়ীতে যাওয়া মাত্রই শরীফ এবং তার মা মিলে আমাকে তাহাদের বসত বাড়ীর পূর্ব ভিটির ঘরে আটকাইয়া আমাকে খুন জখমের হুমকি দিয়া আমার ব্যবহৃত একটি মোবাইল সেট যাহাতে আমাদের বিবাহের সকল তথ্য সংরক্ষিত ছিল মোবাইলটি শরীফের মা আমার নিকট হইতে নিয়া যায়। তখন আমি শাশুড়ী শেফালীকে বাধা নিষেধ দিলে আমাকে চর থাপ্পর মারিয়া জখম প্রাপ্ত করে এবং বলে যে, আমি যদি শরীফকে স্বামী হিসাবে দাবী করি তাহালে আমাকে ও প্রথম স্বামীর ছেলে মো: সাইম (১০) সহ পরিবারের লোকজনকে সুযোগমত রাস্তাঘাটে পাইলে মারপিটসহ খুন জখম করিবে এবং স্বামী শরীফ আমাদের বিবাহের কথা অস্বীকার করিয়া বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিয়া তাহাদের বাড়ী হইতে তাড়াইয়া দেয়। বরমী বাজারের কাজী মহিউদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করিয়া আমার বিবাহের কাবিন দেওয়ার জন্য বলিলে কাজী মহিউদ্দিন বলেন,শরীফ আমাকে আদালতের কোর্ট ম্যারিজ দেখাইলে দুজনের বিবাহ পড়াইয়া দেয়।

শরীফের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি। সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে শরীফ ও শরীফের বাবা-মা বাড়ি ঘরের দরজা তালা লাগিয়ে পালিয়ে যান। এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য ফারুক বলেন,মেয়েটি উক্ত বিষয়টি আমাকে জানালে শরীফের বাবা-মার সাথে কথা বলতে চাইলে অপারগতা জানান।
শ্রীপুর মডেল থানার উপ পরিদর্শক এস আই আশিস জানান অভিযোগ হাতে পেয়েছি ৩০ তারিখে সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে বিধিমোতাবেক আইনগত ব্যবস্হা নিবো।

বিজ্ঞাপন

আরো পড়ুন: ইসলামপুরে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৩য় শ্রেণি কর্মচারীদের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

বিজ্ঞাপন
x