13.7 C
New York
মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১

ঝিনাইগাতী অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল আদায়ের অভিযোগ

বিজ্ঞাপন

 

বিজ্ঞাপন

দুদু মল্লিক, ঝিনাইগাতী (শেরপুর) সংবাদদাতা: শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল আদায়ের অভিযোগ করেছে বিদ্যুৎ গ্রাহকরা । অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল আদায়ের নতুন কোন ঘটনা নয় মাসের পর মাস শেষ হলেই গ্রাহকদের হাতে বিদ্যুৎ বিলের কাগজটা ধরিয়ে দেয় । গ্রাহকরা উপায় না পেয়ে বিলের অতিরিক্ত বিলের কাগজ নিয়ে প্রতিকার চেয়ে ছুটে যায় জন প্রতিনিধি,নেতা ও সাংবাদিকদের নিকট । দেখা গেছে মিটারে ইউনিট আছে একটা বিল হচ্ছে তার তিনগুন বা ৪গুন ইউনিটের বেশী । বিদ্যুৎ অফিসের কর্মরত লোকজনের অবহেলায় মিটার রিডিং না দেখে গ্রাহকদের আনুমানিক বিল করে আসছে দির্ঘ দিন থেকে যার ফলে গ্রাহকরা সেবার বদলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে । অনেকেই অতিরিক্ত বিলের কারণে ব্যাংকে বিলের টাকা পরিশোধ করতে পারে নাই । বিলের কাগজ নিয়ে আবাসিক প্রকৌশলী বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযুগ করতে গেলে আরই বা ক্যারানী পরবর্তীতে ঠিক করার অজুহাত দিয়ে বিল পরিশোধ করার তাগিদ দেয় । এ অবস্থায় গ্রাহকরা বিল নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছে । বিদ্যুত গ্রাহক রমজান আলী,শহিদুল্লাহ,লুৎফর রহমান,ফিরুজ মিয়া সহ অনেকেই জানান আমাদের মিটার রিডিং থাকে কম বিল করে বেশী ইউনিটের । বহুবার ধর্ণা দিয়েও কোন কাজ হয়নি । উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাদশা জানান অতিরিক্ত বিল করার অভিযোগ প্রায়ই প্রতিদিন গ্রাহকরা অফিসে ,ফোনে বা সাক্ষাতে বলে থাকে । জেলা পরিষদের সদস্য আয়শা সিদ্দিকা রুপালী জানান তার এলাকায় বিদ্যুৎ বিল দিয়ে অনেকেই নি:শ্ব হয়ে পড়েছে । তাদের বিলে অতিরিক্ত টাকার অংক দেখে অবাক হয়ে যায় বলে অবহিত করেন । কারন খুজে দেখা গেল অনেকের বাড়িতে বছরের পর বছর মিটার লাগানো হয়েছে বিল দেয়া হচ্ছে না । এর ঘাটতি মিটানোর জন্যেই কি অতিরিক্ত বিলের টার্গেট নিয়ে পূরন করে আসছে বিদু্ৎ অফিস । যার ফলে সরকার রাজস্ব আদায় থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে । আসন্ন বোর ফসলের কৃষকদের সেচের বিলও করা হয়েছে দিগুন বা তিনগুন ।
বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বৈধ গ্রাহকরা পড়েছে বিপাকে । এ ব্যাপারে ঝিনাইগাতী আবাসিক প্রকৌশলী আরই জানান অতিরিক্ত বিলের কাগজ নিয়ে অনেকেই অফিসে আসে আমি তা সমাধান করার চেষ্টা করি এবং তদন্ত করে দেখার কথা বলে জানিয়ে দেয় গ্রাহককে ।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ সংবাদ

বিজ্ঞাপন
x