বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

দুর্জয় বাংলা || Durjoy Bangla

নজরুলের পাপ

প্রকাশিত: ০৯:৫৫, ২৬ মে ২০২৩

আপডেট: ০৯:৫৬, ২৬ মে ২০২৩

নজরুলের পাপ

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম

কারো পাপের ভাগ নিতে কেউ রাজি নয়। দস্যু রত্নাকরের পাপের ভাগ নিতে রাজি হয়নি তার স্ত্রী সন্তান। অথচ স্ত্রী সন্তানের ভরণ পোষণের জন্যে রত্নাকর দস্যুবৃত্তি করত। পূণ্যের ভাগ সবাই চাই। কেউ হজ্ব কিংবা তীর্থে গেলে আমরা এগিয়ে গিয়ে দোয়া আশীর্বাদ চেয়ে আসি। পূণ্যফল নগদ নারায়ণ হলে যেমন পেনশন হলে ভাগ চাই ই চাই। না পেলে কেড়ে নেয়ার উদাহরণ বাংলাদেশ তথা বিশ্বে ভুরি ভুরি।

নজরুলের পাপ কবিতায় ভাগ বসালে লাভবান হবেন যে কেউ। নজরুলের পাপে সমাজে আসবে পরিবর্তন। পাল্টে যাবে পাপের ব্যাখ্যা।  সমাজের  ভেতরের ,বাহিরের সকলের জন্যে বার্তা আছে এ কবিতায়। কয়েক লাইনের কবিতা কয়েক রজনীর গল্প শোনাবার জন্যে যথেষ্ঠ। মানুষ, দেবতা, ঈশ্বর,মন্দির, মসজিদ পাপ-পূণ্য, শরীর- আত্মা, স্বর্গ-নরক-মর্ত্য, নারী-পুরুষ- অপ্সরা, হারুত-মারুত, প্রকৃতি পরিবেশ কী নেই এই পাপ কবিতায় ?

সবার আগে সাম্য। সম্পদের সাম্য নয়। মানুষের পাপের সাম্য। পাপ পূণ্যের বিচারে ধনী গরিব ,ছোট বড় সব মানুষকে এক কাতারে নামিয়ে এনেছেন কবি নজরুল
সাম্যের গান গাই
যত পাপী, তাপী সব মোর বোন, 
সব হয় মোর ভাই।

পাপীকে মুক্তির স্বীকৃতি দিয়েছেন অনেক মহাপুরুষ। তাদের ক্ষমা করার জন্যেও বলেছেন। নজরুল আরো কয়েক ধাপ এগিয়ে এসে পাপীদের ভাই বলে বুকে টেনে নিলেন। বোন ডেকে চোখের জল মুছিয়ে দিলেন। এই হলেন নজরুল। সবার থেকে আলাদা। স্কুল শিক্ষকের মত রীতিমত ক্লাস নিয়েছেন পাপ কবিতায়। প্রশ্ন ছুঁড়েচেন সবার দিকে, পাপ মুলুকে পাপ করেনি এমন কোন নারী পুরুষ কী আছে? নজরুল নিজেই জবাব দিয়েছেন না নেই। পূণ্যের ধ্বজাধারীদের মুখে কাপড় গুঁজে দিয়ে বলেছেন, সব মানুষ পাপী আর যারা নিজেদের মানুষের কাণ্ডারী বলে দাবি করে তারাও পাপে পঙ্কিল। সহজ কথা যায় না বলা সহজে, নজরুল বললেন তরলে। পান্ণ্ডিত্যের মারপ্যাচ নেই। কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই সরাসরি ঝামা ঘসে দিলেন কাণ্ডারীদের মুখে। দেবতাদের মুখের উপর বলে দিলেন, স্বর্গের পতনের মূলে স্বর্গের দাবিদার দেবতারাই দায়ী। রাজার দোষেই রাজ্য পোড়ে। দেবতাদের পাপের ফাঁক দিয়েই অসুররা স্বর্গ দখল করে। নজরুলের স্বর্গ তার দেশ দখল করেছিল ব্রিটিশরা। যা ঘটেছিল দেবতারূপী রাজা জমিদারদের পাপের সুযোগ নিয়েই।

পাপ কবিতা জীবনের সত্যবদ্ধ উচ্চারণ। কেউ হলফ করে বলতে পারবেন, পূণ্যকে জবাই করে পাপ সঞ্চয় করেননি জীবনে কখনো।  নজরুল তাই নির্দ্ধিধায় বলেন-
বিশ্ব পাপস্থান।

পাপ কবিতায় নজরুলের সাফ কথা ভগবানের পৃথিবীতে শয়তান আশ্চর্যজনকভাবে অর্ধেক দখল করে নিয়েছে। ধর্মান্ধরা নিজেরা পাপ করে তা ধর্মের ঘাড়ে চাপিয়ে পাপ করছে। পূণ্যের ধ্বজাধারীরা তাদের পাপের কথা মানতেই নারাজ। তাই নজরুল বলেন-
ধর্মান্ধরা শোনো অন্যের পাপ গনিবার আগে নিজেদের পাপ গোনো !

সমাজে অন্যের পাপ গোনার কাজ করে কে ? মোল্লা, পুরুত, পাদ্রি, সমাজপতি, সদগুরু , পণ্ডিত-মহাপণ্ডিত-জ্ঞান পাপীরাই। তাই জ্ঞানের আদিগুরুর মতই নজরুল ধর্মান্ধদের নিজেদের পাপের হিসাবেরে কথা জানতে বলেছেন। অন্যের পাপ নিয়েই যাদের ব্যবসা তাদের নিজেদের শুদ্ধির কথা বলেছেন তার পাপ ককিতায়। নজরুল কতটা বাস্তবিক তা আমরা আমরা আমাদের নিজেদের জীবনে ঘটা ঘটনা আর নজরুলের কবিতা পাঠে বুঝতে পারি। পূণ্যব্যবসায়ীরা ঘুম থেকে জাগিয়ে আপনাকে পাপের সবক দিচ্ছে অথচ তাদের নিজেদের হিসাব কেউ রাখে না। পাপ কবিতায় নজরুল ধর্মান্ধদের ছবি তোলে ধরেছেন যাতে আপনাদের চিনতে অসুবিধা না হয়। নজরুল যে সময়ে কবিতাটি লিখেছেন তার চেয়ে বহুগুণ বেশি ভয়ানক সময়ে আমরা বাস করছি খবরের কাগজ আর অন্তর্জালে তা টের পাবেন। ধর্মান্ধরা নজরুলের কথার ধার ধারেনি। এখনো ধারে না। তাই কুপিয়ে হত্যা করে সত্যবাদীদের আর তকমা পরিয়ে দেয় ধর্মদ্রোহীর। নজরুলের পাপ আমাদের চোখ খোলেনি। তাই যারা পাপের পঙ্কে পদ্ম হয়ে ফুটতে চেয়েছে ফুলকে ভালোবাসার অপরাধে পাপী হতে হয়েছে তাদের এ সমাজে।

বঞ্চিত নজরুল অভিশাপ ভরা ধরাতে সব সময় বঞ্চিতদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। বঞ্চনার সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম বিষয় সমূহ উঠে এসেছে তার কবিতায়। মানুষকে শোধরানোর লক্ষ্যে পাপ কবিতায় দেহকে বঞ্চিতদের তালিকায় সুন্দর করে উপস্থাপন করেছেন নজরুল। কবিতায় দেহতত্ত্ব নিয়ে আলাপ করেননি তিনি। দেহকে অচ্যুতের তালিকায় ফেলায় বাস্তবতার মুখোমুখি করেছেন ধর্মবেত্তাদের। ব্রহ্মা, বিষ্ণু ,শিব হতে শুরু করে যত ধ্যানী মুনি ঋষি, সবাই পাপকে ঢাকতে শরীরকে ব্যবহার করেছেন নিচ রূপে।  এখানেই নজরুলের দুঃখ। নজরুল বাউল নন। বাউলেরা বলেন মানব দেহই সব তত্ত্ব ও সত্যের ভিত্তি। দেহই হল সকল জ্ঞান ও কর্মের উৎস, দেহই  কৈলাশ-বৃন্দাবন, মক্ক্বা-মদিনা। নজরুল এরূপ নন। তিনি দেহের পক্ষ নিয়েছেন দেহের উপর নিপিড়ন দেখে। নজরুল যে নিপিড়িত, তিনি নিপিড়িতের। নজরুল বঞ্চিতের পক্ষের লোক তাই কর্পোরেট সমাজ এখনো তাকে সঠিক মর্যাদা দেয়নি, দিবেও না কখনো। ধর্ম কর্তারা  বলছেন, দেহের দাম নেই, দেহ অপবিত্র, দেহের দিকে তাকানোর কিছু নেই। আত্মা আত্মাই সব। দেহ অশুচি। পরমাত্মার সাথে মিলিত হবার জন্য দেহকে শুচি হতে হয়। নজরুল তাই আক্ষেপ করে বলেন –
যত অবতার আদি কেহ
পূণ্যে দিলেন আত্মা ও প্রাণ,
পাপেরে দিলেন দেহ । 

স্পষ্টবাদী নজরুল দুনিয়াকে পাপশালা বলে অভিহিত করেছেন। এই পাপশালায় সকলেই পাপী। তাই পাপের পরিধি যারা নির্ণয় করেন, তারা তাদের দৃষ্টি দিয়ে পাপ পূণ্য স্থির করেন। এক দেশে যা পাপ অন্য দেশে তা পূণ্য । এক বস্ত্র পাপের প্রতীক এক জাতির কাছে অন্য জাতির কাছে তা পূণ্যর প্রতীক। সবাই পাপের আবর্তেই ঘুরে। নিজের স্বার্থ ব্যতিরেকে যে সমাজে যা ঘটছে তা সবই পাপ। আর লাভের ভাগে পড়লে সমাজপতিরা তাকেই মেনে নেন পূণ্য বলে। পাপ-পূণ্য গায়েবী বিষয় নয়। পাপ মাপার জন্য কোন মেশিন দেননি ঈশ্বর। ধর্মান্ধদের পাপের বাটখারাকে বাতিল করে পাপ নির্ণয়ের উপায় বলেছেছন নজরুল পাপ কবিতায়। কত সহজ হিসাব-
হেথা সবে সম- পাপী
আপন পাপের বাটখারা দিয়ে অন্যের পাপ মাপি।

বোম্বাস্টিক শব্দ আর পারমাণবিক বাক্য দিয়ে কোন ডক্টরেট ডিগ্রীকে জাহির করার প্রয়াস করেননি নজরুল। মক্তবের ছাত্র, গ্রামের ছাত্র তাই সহজ ভাবেই সমাজ জিজ্ঞাসা নজরুলের
যদি দেবতাই হও
টুপি পরে টিকি রেখে সদা বলো 
যেন তুমি পাপী নও।

ভড়ং আর ট্রেড মার্কার ধুম যে আজকের যুগে এসে ইউটিউব আর ফেসবুকে, হোয়াটসএ্যাপ আর টুইটারে, নগরে গ্রামে ইনস্টাগ্রামে ঝড় তুলবে তা বহু আগেই বুঝে নিয়েছিলেন নজরুল। সমকালীন কবিতায় নজরুল কতটা প্রাসঙ্গিক তা বলার অপেক্ষা রাখে না। কিন্তু নজরুল যে সমাজের মুখোশ খোলতে চেয়েছিলেন সে সমাজ আরো নিচে নেমেছে। ধর্মান্ধরা তাই আজও নজরুলকে গজল, কীর্ত্তন আর ফুলের জলসায় ডুবিয়ে রাখতে চায়। তার কবিতার বার্তা গুম হবে তা বোধহয় তিনি জানতেন। তাই পাপ কবিতায় বলেন-
পুলিশী পোষাক পরিয়া হয়েছে পাপের আসামী গুম।

হ্যাঁ সত্যিই পাপ কবিতায় নজরুলই পাপের আসামী। পৃথিবীতে এত পাপ। নজরুল মেধার জোরে দেবতাদের কাতারে সামিল হতে পারতেন সহজেই। কিন্তু না, নজরুল দেবতাদের, ফেশেতাদের ছেড়ে কাদা-মাটির মানুষের পক্ষ নিয়েছেন। হয়েছেন পাপের আসামী। নির্র্ধনের ধন, অসহায়ের সহায়, সম্বলহীনের একমাত্র সম্বল, শোষিতের অন্তর্জামী ঈশ্বরকে নিয়ে এসেছেন কাদা মাটির মানুষের পাশে। হারুত মারুত গল্প রচে গেয়েছেন পৃথিবীর প্রতি তার ঘোর লাগা ভালোবাসার গান। পাপের পৃথিবীই মানুষের , পাপের পৃথিবীই নজরুলের , পাপের পৃথিবীর প্রতিপালক ঈশ্বর। তাই ফেরেশতা , আর দেব দেবীরা ঈর্ষা করে বিপদ দেন মানুষকে । অবতা আর পয়গম্বররা পরখ করতে চেয়েছেন পৃথিবীকে বারবার। কী এমন আছে পৃথিবীতে ? ঈশ্বর পৃথিবী নিয়ে কেন মত্ত। স্বর্গে তার লোভ নেই।

পাপের পৃথিবী যে স্বর্গ নজরুলের। পৃথিবীর রূপে যে তিনি বাংলার রূপ বসিয়েছেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। পাপ কবিতায় জীবনানন্দ আর তার বনলতা সেন যেন ফেল করেছেন বাংলার রূপ বন্দনায়-
ফুলে ফুলে সেথা ভুলের বেদনা-নয়নে , অধরে শাপ ,
চন্দনে সেথা কামনার জ্বালা , চাঁদে চুম্বন-তাপ !
সেথা কমিীনির নয়নে কাজল , শ্রোণীতে চন্দ্রহার ,
চরণে লাক্ষা , ঠোঁটে তাম্বুল , দেখে ম’রে আছে মার !

পৃথিবীতে শিয়রে মৃত্যু-জরা তবু এখানে ফুল ফোটে-ঝরে। কী  আশ্চর্য বিষয় ! ফুলেদের মৃত্যু ভয় নেই। সুন্দরী বসুমতীর চোখের বাঁকা ইশারায় হারুত-মারুত কাত হয়ে মানুষে মিশে যায়। ধরণীর সর্বনাশী মায়ায় আটকা পড়ে হারুত-মারুত। ভুলে যায় স্বর্গসুখ। হারুত আর মারুত যেন লালন আর নজরুল হয়ে ঘাটে ঘাটে, মাঠে মাঠে গান গেয়ে বেড়ায়-
পাপ পূণ্যের কথা আমি কারে বা শোধাই
এদেশে যা পাপ গণ্য, অন্য দেশে পূণ্য তাই।

আরও পড়ুন: গাজীপুর সিটির নতুন মেয়র জায়েদা খাতুন

শীর্ষ সংবাদ:

ঈদ ও নববর্ষে পদ্মা সেতুতে ২১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা টোল আদায়
নতুন বছর অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে: প্রধানমন্ত্রী
কলমাকান্দায় মোটরসাইকেলের চাকা ফেটে তিনজনের মৃত্যু
র‌্যাব-১৪’র অভিযানে ১৪৫ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক
সবার সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন: প্রধানমন্ত্রী
ঈদের ছুটিতে পর্যটক বরণে প্রস্তুত প্রকৃতি কন্যা জাফলং ও নীল নদ লালাখাল
কেন্দুয়ায় তিন দিনব্যাপী ‘জালাল মেলা’ উদযাপনে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত
ফুলবাড়ীতে ঐতিহ্যবাহী চড়কসহ গ্রামীণ মেলা অনুষ্ঠিত
কেন্দুয়ায় আউশ ধানের বীজ বিতরণ ও মতবিনিময় অনুষ্ঠিত
কলমাকান্দায় দেশীয় অস্ত্রসহ পিতাপুত্র আটক
ঠাকুরগাঁওয়ে গ্রামগঞ্জে জ্বালানি চাহিদা পূরণ করছে গোবরের তৈরি করা লাকড়ি গৃহবধূরা
ফুলবাড়ীতে এসিল্যান্ডের সরকারি মোবাইল ফোন নম্বর ক্লোন চাঁদা দাবি: থানায় জিডি দায়ের
ফুলবাড়ীতে সবজির দাম উর্ধ্বমূখী রাতারাতি দাম বাড়ায় ক্ষুব্ধ ভোক্তা
ধর্মপাশায় সরকারি রাস্তার গাছ কেটে নিলো এক শিক্ষক
সাঈদীর মৃত্যু নিয়ে ফেসবুকে ষ্ট্যাটাস দেয়ায় রামগঞ্জে ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার
বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ীতে অনশন
মসিকে ১০ কোটি টাকার সড়ক ও ড্রেনের কাজ উদ্বোধন করলেন মেয়র
কলমাকান্দায় নদীর পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ-বেত শিল্প
বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও প্রাবন্ধিক যতীন সরকারের জন্মদিন উদযাপন
বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ যতীন সরকারের ৮৮তম জন্মদিন আজ
১ বিলিয়ন ডলার নিয়ে এমএলএম mtfe বন্ধ
কলমাকান্দায় পুলিশের কাছে ধরা পড়লো তিন মাদক কারবারি
আটপাড়ায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১০৩ জন কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা
নকলায় ফাঁসিতে ঝুলে নেশাগ্রস্থ কিশোরের আত্মহত্যা
বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নুরুল ইসলামের রাজনৈতিক জীবনের ইতিহাস
কলমাকান্দায় আগুনে পুড়ে ২১ দোকানঘর ছাই

Notice: Undefined variable: sAddThis in /home/durjoyba/public_html/details.php on line 809