সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০

দুর্জয় বাংলা || Durjoy Bangla

বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু

প্রকাশিত: ১৮:৩২, ৩ ডিসেম্বর ২০২৩

বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু

বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু

মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান।মুক্তিযোদ্ধা তথা জাতির বীর সন্তানেরা কোন পরিবার বা গোষ্ঠীর নয় তারা পুরো বাঙ্গালী জাতির  অহংকার। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও নেত্রকোণায় আওয়ামীলীগের রাজনীতির ইতিহাসে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু এক অপরিহার্য নাম।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আশরাফ আলী খান এর জীবন ঘটনাবহুল ও বৈচিত্রময়। তিনি পরাধীন আমলে আয়ুব শাসনের রক্তচক্ষু আর দু:সহ নির্যাতন উপেক্ষা করে নেত্রকোণায় ছাত্রলীগের সংগঠন করেছেন। বঙ্গবন্ধুর ডাকে অস্ত্র হাতে মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখ সমরে জীবন বাজী রেখে লড়াই করেছেন, ছিনিয়ে এনেছেন সকলে মিলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা। মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু ১৬ ফেব্রুয়ারি্, ২০২০ তারিখ থেকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

জন্ম:
বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু নেত্রকোণা জেলা শহরের এক সভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১৯৪৯ সালের ২২ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম নূরুল ইসলাম খান (এন আই খান) এবং মাতা মরহুমা হেনা ইসলাম। তাঁর পিতাও আওয়ামীলীগের একজন নেতা ওমুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন। ১৯৭১ সালে ২৩ মার্চ নেত্রকোণা মুক্তারপাড়া মাঠে জয়বাংলা বাহিনী কর্তৃক সালাম গ্রহণ করেন এবং স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তোলন করেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খানের মাতা হেনা ইসলাম নেত্রকোণা মহকুমা আওয়ামীলীগের মহিলা সম্পাদিকা ছিলেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাঘমারা রিফিউজি ক্যাম্পে স্বেচ্ছাসেবিকা হিসেবে কাজ করেন তিনি। তাঁর সহধর্মিনী কামরুন্নেছা আশরাফ দীনা নেত্রকোণা জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি। নেত্রকোণা জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং বাংলাদেশ ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সদস্য। তাঁর স্থায়ী ঠিকানা- এন আই খান ভবন, মোক্তার পাড়া, নেত্রকোণা।

শিক্ষা জীবন:
বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু ঐতিহ্যবাহী দত্ত উচচ বিদ্যালয় হতে ম্যাট্রিক ও নেত্রকোণা সরকারি কলেজ থেকে বিএ ডিগ্রি অর্জন করেন।

রাজনৈতিক  জীবন:
ছাত্রজীবন থেকেই তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন। পরবর্তিতে তিনি শ্রমিকলীগ ও আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন হন। ১৯৬২ সালে নেত্রকোনা মহকুমা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে মোঃ আশরাফ আলী খান খসরুর রাজনীতির পথ চলা শুরু হয়। ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাকালীন অন্যান্য সদস্য যারা ছিলেন তারা হলেন সভাপতি  জনাব মেহের আলী ও সেক্রেটারী জনাব শামসুজ্জোহা,জনাব জামাল উদ্দিন আহম্মেদ, বিপ্লব চক্রবর্তী,হায়দার জাহান চৌধুরী, মতিয়র রহমান খান, শহিদ উদ্দিন আহমেদ, আব্দুল ওয়াহেদ, আ: মান্নান, আব্দুর রহমান, আলাউদ্দিন খান, ধীমান রঞ্জন বিশ্বাস (ভারত প্রবাসী)(জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন পূর্বপাকিস্তান আওয়ামীলীগের ছাত্র সংগঠন)।১৯৬৪ সালে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে প্রথম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের অন্যতম স্থপতিও  মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু । সব আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দু দত্ত উচচ বিদ্যালয়ের উত্তর পশ্চিম কোণে কাচারি রোডের সংযোগস্থলে তিন রাস্তার মোড়ে বর্তমান শহীদ মিনারের প্রধান গেইটের জায়গায় তৎকালীন নেত্রকোণা মহকুমা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সর্বজনাব মেহের আলী, প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারী শামসুজ্জোহা, জামাল উদ্দিন আহমেদ (জনাব মেহের আলী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে যাবার পর সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়), হায়দার জাহান চৌধুরী, মতিউর রহমান খান,গাজী মোশারফ হোসেন, হাবিবুর রহমান খান(খসরু),সাখাওয়াত হোসেন এর নেতৃত্বে প্রথম শহীদ মিনারটি স্থাপিত হয়। তিনি ১৯৬৪ সালে আইয়ুববিরোধী আন্দোলনে ছাত্রলীগ কর্মী হিসেবে কারাভোগ করেন। তিনি ১৯৬৬-৬৮ সাল পর্যন্ত নেত্রকোণা মহকুমা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক, ১৯৬৮-৬৯ পর্যন্ত সাংগঠনিক সম্পাদক, ১৯৬৯-৭০ সাল পর্যন্ত নেত্রকোণা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

তিনি ১৯৭১ সালে কম্পানী কমান্ডার হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭২-৭৩ সাল পর্যন্ত নেত্রকোণা জেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৭৬ সালে সামরিক সরকারের জরুরি অবস্থাকালীন এক বৎসর কারাভোগ করেন। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্বদান করেন। তিনি ১৯৯৭-২০০৪ সাল পর্যন্ত নেত্রকোণা জেলা আওয়ামীলীগের  যুগ্মসাধারণ সম্পাদক এবং ২০০৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত নেত্রকোণা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ২০১৬ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা কর্তৃক পুনরায় তিনি নেত্রকোণা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৫ সালে বিএনপি কর্তৃক তার বাড়িঘরে হামলা এবং পুলিশি নির্যাতন করা হয়। মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু ২০০৮ সালেও ১৫৮ নেত্রকোণা-২ (নেত্রকোণা সদর ও বারহাট্টা) এর জাতীয় সংসদ সদস্য ছিলেন।

সমাজ সেবা:
তিনি নেত্রকোণা সদরের চল্লিশাস্থ হেনা ইসলাম মহাবিদ্যালয়, নেত্রকোণা সদরের রৌহা ইউনিয়নস্থ মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু প্রাথমিক বিদ্যালয়, দুধকুড়াস্থ কামরুন্নেছা আশরাফ প্রাথমিক বিদ্যালয় এর প্রতিষ্ঠাতা এবং নেত্রকোণা পৌরসভাস্থ দি হলি চাইল্ড কিন্ডার গার্টেন স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। তিনি রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, নেত্রকোণা পাবলিক লাইব্রেরি, নেত্রকোণা রাইফেলস ক্লাব এবং শিল্পকলা একাডেমির আজীবন-সদস্য।

পুরষ্কার ও সম্মাননা:
তিনি দ্বিতীয়বারের মতো ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে ৭ জানুয়ারি, ২০১৯ তারিখে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেন। ১৬ ফেব্রুয়ারি্, ২০২০ তারিখ থেকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন: মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা খালেকদাদ চৌধুরী


Notice: Undefined variable: sAddThis in /home/durjoyba/public_html/details.php on line 808