সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০

দুর্জয় বাংলা || Durjoy Bangla

পূর্বধলা হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

প্রকাশিত: ২১:৫৩, ৯ ডিসেম্বর ২০২৩

পূর্বধলা হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

পূর্বধলা হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

নেত্রকোণার পূর্বধলায় হানাদার মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের আয়োজনে শনিবার (৯ ডিসেম্বর) পুস্পস্তবক অর্পণ, বিজয় র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকালে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। 

পরে উপজেলার চত্বর থকে একটি বিজয় র‌্যালি বের হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কার্যালয়ে আলোচনা সভায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তান শহীদুল ইসলাম আঙুর’র সঞ্চালনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. খবিরুল আহসান’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ রাজু আহমেদ রাজ্জাক সরকার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজনীন আক্তার, পূর্বধলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ রাশেদুল ইসলাম, পূর্বধলা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাসুদ হাওলাদার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মো. আইয়োব আলী, মো. নিজাম উদ্দিন, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার মো. আব্দুর রব তালুকদার, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদির, মুক্তিযোদ্ধা ইসলাম উদ্দিন, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের উপজেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক এমদাদুল হক বাবুল, পূর্বধলা সদর ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান বুলবুল, আগিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. সানোয়ার হোসেন চৌধুরী, গোহালাকান্দা ইউপি চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কেন্দ্রীয় কমান্ড’র বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির তুহিন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সভাপতি মো. আফাজ জাহাঙ্গীর রাসু, সাধারণ সম্পাদক হাসান আব্দুল্লাহ আল তারেক প্রমুখ। 

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের এই দিনে নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলা শত্রু মুক্ত হয়। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিকামী জনতার যৌথ প্রতিরোধের মূখে পাকহানাদার বাহিনী ৮ ডিসেম্বর পূর্বধলা থেকে পালিয়ে যায়। এদিকে বিজয়ের ঠিক আগ মুহূর্তে ৮ ডিসেম্বর একদল পাকিস্তানি সৈন্যের ব্রাশফায়ারে শ্যামগঞ্জে নির্মমভাবে শহীদ হন তৎকালীন ইপিআর হাবিলদার সুধীর বড়ুয়া। 

৯ ডিসেম্বর সকালে আবারো হানাদার বাহিনী জারিয়া-ময়মনসিংহ রেলপথে ট্রেনযোগে গৌরীপুর থেকে পূর্বধলা প্রবেশ করতে চাইলে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিপাগল জনতার তীব্র আক্রমন ও প্রতিরোধের মুখে পিছু হটতে বাধ্য হয়। এসময় পিছুহটা পাকসেনারা পূর্বধলা উপজেলার পাবই রেল সেতুটি মাইন বিস্ফোরণে ধ্বংস করে যায়। পূর্বধলার ওই যুদ্ধই একাত্তরের রণাঙ্গনে নেত্রকোনা জেলার শেষ যুদ্ধ। 

আরও পড়ুন: সারী নদীর তীরে জলবায়ু উদ্ভাস্তদের সমাবেশ


Notice: Undefined variable: sAddThis in /home/durjoyba/public_html/details.php on line 808