শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১

দুর্জয় বাংলা || Durjoy Bangla

গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোর কোন কোন

ক্লাশে শিক্ষকের চেয়ে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি কম

ক্লাশে শিক্ষকের চেয়ে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি কম

পালড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষ সংকট। মাঠ উপযোগী না থাকায় ছাত্র ছাত্রীরা খেলাধুলা করতে পারছে না।

গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোর কোন ক্লাশে শিক্ষকের চেয়ে ছাত্র/ছাত্রীর উপস্থিতি কম থাকে। আর এভাবেই চলছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ছাত্র/ছাত্রী ও শিক্ষক শিক্ষিকাদের উপস্থিতি- অনুপস্থিতি নিয়ে অজুহাতের কোন শেষ নেই।

শিক্ষক শিক্ষিকাগণ বলেন, অভিভাবকগণ সচেতন না। তারা ছেলে মেয়েদেরকে লেখাপড়া করানোর চাইতে শিশু বয়সেই গৃহস্থালীর অন্যান্য কাজে লাগিয়ে দেন। আবার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি রেখে অনেক ছাত্র ছাত্রীকে কিন্ডার গার্টেন ও ইসলামি মাদ্রসায় নিয়ে ক্লাশ করান।

অভিভাবকদের দাবি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকারা অনেকাংশে রাজনীতিসহ নানাবিধ সামাজিক সংগঠনের কাজে ব্যস্ত থাকেন বেশি। যে কারণে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঠিকমত লেখাপড়া হয় না। শিক্ষক শিক্ষিকারা সময়মত বিদ্যালয়ে আসে না। এমনও বিদ্যালয়ের শিক্ষিকারা আছে যারা সপ্তাহে ১ দিন বিদ্যালয়ে গিয়ে হাজিরা খাতায় সব দিনের স্বাক্ষর করেন। তাই বাধ্য হয়েই আমরা আমাদের ছেলেমেয়েদেরকে কিন্ডার গার্টেন ও মাদ্রসায় নিয়ে লেখাপড়া করাই।

বৃহস্পতিবার দুপুরে এ সব তথ্য সংগ্রহে কেন্দুয়া উপজেলার কয়েকটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরেজমিনে গেলে উঠে আসে নানা তথ্য। পৌর এলাকার চন্দগাতী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূরুন্নাহার খানম জানান, তার বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক শিক্ষিকা ৫ জন। ১ জন উপজেলা শিক্ষা অফিসারে কাজ করেন। মোট ছাত্র ছাত্রী ৯৩ জন। ছাত্র ছাত্রীদের হাজিরা উপস্থিতি খাতা দেখে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার প্রথম শ্রেণিতে ২০ জনের মধ্যে উপস্থিত ১২ জন, দ্বিতীয় শ্রেণিতে ১৭ জনের মধ্যে ১১ জন, ৩য় শ্রেণিতে ১৪ জনের মধ্যে ৪ জন, ৪র্থ শ্রেণিতে ১৮ জনের মধ্যে ৬ জন ও ৫ম শ্রেণিতে ১৩ জনের মধ্যে ৫ জন উপস্থিত হয়। উপস্থিতি এত কম কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, গ্রামের অভিভাবকগণ সচেতন না। তারা ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির ছাত্র ছাত্রীদের গৃহস্থালীর কাজে বর্তমানে ধান কাটা ও মারায়ের কাজে লাগিয়ে দিয়েছেন। আমরা বাড়ি বাড়ি গিয়েও ছাত্র ছাত্রীদের উপস্থিতি বাড়াতে পারছিনা। তবে তিনি বলেন, ধান কাটা উৎসব শেষ হয়ে গেলে উপস্থিতি আরও বাড়বে।

পালড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়েও শিক্ষার্থীদের তেমন কোন সারা মেলেনি। প্রধান শিক্ষক মাহফুজা বেগম জানান, তিনি গত ৫ মে বিদ্যালয়ে যোগদান করেছেন। তার বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিক্ষিকা ৬ জন। বৃহস্পতিবার শিশু শ্রেণিতে ৭ জনের মধ্যে ৫ জন, ১ম শ্রেণিতে ১৮ জনের মধ্যে ১৪ জন, ২য় শ্রেণিতে ১৭ জনের মধ্যে ১৩ জন, ৩য় শ্রেণিতে ১৬ জনের মধ্যে ১২ জন, ৪র্থ শ্রেণিতে ১৪ জনের মধ্যে ৯ জন এবং ৫ম শ্রেণিতে ১২ জনের মধ্যে ৯জন উপস্থিত হয়। ওই বিদ্যালয়ের মাঠেই কাজ করছিলেন একজন কৃষক অভিভাবক।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলেন, ছাত্র ছাত্রীর উপস্থিতি যে হিসাব আপনাদের দেওয়া হয়েছে তা কাগজে পত্রে। মূলত অর্ধেক ছাত্র ছাত্রীও স্কুলে আসে না।
তেতুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মোতাহার হোসেন বলেন, বৃহস্পতিবার ১ম শ্রেণিতে ৪৯ জনের মধ্যে ২৫ জন, ২য় শ্রেণিতে ৩৫ জনের মধ্যে ৩৩ জন, ৩য় শ্রেণিতে ২৩ জনের মধ্যে ২০ জন, ৪র্থ শ্রেণিতে ২৮ জনের মধ্যে ২৩ জন ৫ম শ্রেণিতে ২৯ জনের মধ্যে ১৬ জন ছাত্র ছাত্রী উপস্থিত হয়। তিনি দাবি করেন, কৃষি কাজের জন্যই এখন ছাত্র ছাত্রীরা ঠিকমত বিদ্যালয়ে আসে না। আমরা ইংরেজি এবং অংক ক্লাশের জন্য বিদ্যালয়ে আসতে বললেও ছাত্র ছাত্রী ইংরেজি ও অংক ক্লাশ করে চলে যায়।

সাজিউড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেণিতে উপস্থিত পাওয়া যায় ৩ জন  এবং ৪র্থ শ্রেণিতে পাওয়া যায় ৫ জন। প্রধান শিক্ষক বিলকিছ চৌধুরী জানান, বুরো মৌমুমে ধান কাটার সময় ছাত্র ছাত্রীরা বিদ্যালয়ে আসতে চাই না। একই কথা বলেন, ধোপাগাতী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিখা পন্ডিত। তার বিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার ৩য় শ্রেণিতে ২২ জনের মধ্যে ১০ জন, ৪র্থ শ্রেণিতে ২০ জনের মধ্যে ১৮ জন, ১ম শ্রেণিতে ১৮ জনের মধ্যে ১২, ২য় শ্রেণিতে ২০ জনের মধ্যে ১৬ এবং ৫ম শ্রেণিতে ২০ জনের মধ্যে ১৪ জন ছাত্র ছাত্রী উপস্থিত হয় বলে তিনি জানান।

তবে উপস্থিত হাজিরা অনুযায়ী ছাত্র ছাত্রী কম কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ২টি ক্লাশ করে অনেক ছাত্র ছাত্রী চলে গেছে। অভিভাবকরা ধান কাটা মৌসুমে বিদ্যালয়ে পাঠাতেই চান না। কেন্দুয়া উপজেলা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম খান বলেন, বর্তমান বুরো ধান কাটা মৌসুমে অভিভাবকরা ছাত্র ছাত্রীদেরকে গৃহস্থালী কাজে লাগিয়ে দেন। তাছাড়া তিনি শিক্ষক শিক্ষিকাদেরও গাফিলতি আছে বলে দাবি করেন।

তাছাড়া মনিটরিং কার্যক্রমের জন্য সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসার ৭ জনের মধ্যে আমি সহ আছি মাত্র ৩ জন। আমি ভারপ্রাপ্ত হিসাবে শিক্ষাকর্তার দায়িত্ব পালন করছি। সকলে মিলিয়ে চেষ্টা করেই প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র ছাত্রীদের উপস্থিতি ও পাঠ দানের মান উন্নয়ন বাড়াতে হবে। 

আরও পড়ুন : কেমন ছিলেন রবীন্দ্রনাথ?

শীর্ষ সংবাদ:

ঈদ ও নববর্ষে পদ্মা সেতুতে ২১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা টোল আদায়
নতুন বছর অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে: প্রধানমন্ত্রী
কলমাকান্দায় মোটরসাইকেলের চাকা ফেটে তিনজনের মৃত্যু
র‌্যাব-১৪’র অভিযানে ১৪৫ পিস ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক
সবার সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন: প্রধানমন্ত্রী
ঈদের ছুটিতে পর্যটক বরণে প্রস্তুত প্রকৃতি কন্যা জাফলং ও নীল নদ লালাখাল
কেন্দুয়ায় তিন দিনব্যাপী ‘জালাল মেলা’ উদযাপনে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত
ফুলবাড়ীতে ঐতিহ্যবাহী চড়কসহ গ্রামীণ মেলা অনুষ্ঠিত
কেন্দুয়ায় আউশ ধানের বীজ বিতরণ ও মতবিনিময় অনুষ্ঠিত
কলমাকান্দায় দেশীয় অস্ত্রসহ পিতাপুত্র আটক
ঠাকুরগাঁওয়ে গ্রামগঞ্জে জ্বালানি চাহিদা পূরণ করছে গোবরের তৈরি করা লাকড়ি গৃহবধূরা
ফুলবাড়ীতে এসিল্যান্ডের সরকারি মোবাইল ফোন নম্বর ক্লোন চাঁদা দাবি: থানায় জিডি দায়ের
ফুলবাড়ীতে সবজির দাম উর্ধ্বমূখী রাতারাতি দাম বাড়ায় ক্ষুব্ধ ভোক্তা
ধর্মপাশায় সরকারি রাস্তার গাছ কেটে নিলো এক শিক্ষক
সাঈদীর মৃত্যু নিয়ে ফেসবুকে ষ্ট্যাটাস দেয়ায় রামগঞ্জে ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার
বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ীতে অনশন
মসিকে ১০ কোটি টাকার সড়ক ও ড্রেনের কাজ উদ্বোধন করলেন মেয়র
কলমাকান্দায় নদীর পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ-বেত শিল্প
বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও প্রাবন্ধিক যতীন সরকারের জন্মদিন উদযাপন
বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ যতীন সরকারের ৮৮তম জন্মদিন আজ
১ বিলিয়ন ডলার নিয়ে এমএলএম mtfe বন্ধ
কলমাকান্দায় পুলিশের কাছে ধরা পড়লো তিন মাদক কারবারি
আটপাড়ায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১০৩ জন কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা
নকলায় ফাঁসিতে ঝুলে নেশাগ্রস্থ কিশোরের আত্মহত্যা
বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নুরুল ইসলামের রাজনৈতিক জীবনের ইতিহাস
কলমাকান্দায় আগুনে পুড়ে ২১ দোকানঘর ছাই

Notice: Undefined variable: sAddThis in /home/durjoyba/public_html/details.php on line 809